সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ৪:৫৯
Home / আন্তর্জাতিক / পাশ্চাত্যের ইসলামি শিক্ষা ষড়যন্ত্র ও আমাদের প্রস্তুতি!

পাশ্চাত্যের ইসলামি শিক্ষা ষড়যন্ত্র ও আমাদের প্রস্তুতি!

সৈয়দ আনোয়ার আব্দুল্লাহ ::

500কানাডাতে প্রতিষ্ঠিত একটি প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আলোচনা করতে চাই। তা হচ্ছে মেকেগাল ইউনিভার্সিটি। এই ইউনিভার্সিটির কার্যক্রম ও এর লক্ষ্য-উদ্দেশ্য সম্পর্কে চিফ জাস্টিজ আল্লামা মুফতি তাকী উসমানি তাঁর ঐতিহাসিক সফরনামা “জাহানে দীদা”তে উল্লেখ করেছেন যে, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ সমগ্র বিশ্বে প্রসিদ্ধ। বর্তমান যুগের অনেক প্রসিদ্ধ “মুসতাশ্রিক” (প্রাচ্য বিশারদ) এখান থেকেই ডিগ্রি লাভ করেছে। অনেক মুসলমান পণ্ডিতও এখান থেকে ইসলামিয়াতে ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করে গর্ববোধ করেন। সারা দুনিয়া থেকে হাজার হাজার ছেলে মেয়ে সেখানে পড়ালেখা করে এবং ইসলামের মৌলিক দর্শন ও তৃনমূল ধর্মতত্বের উপর এরা উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করে সারা দুনিয়াতে ছড়িয়ে পড়ছে। মুসলমানদের সন্তানরা ব্যাপকহারে সেখানে অধ্যয়ন করে থাকে। পাক-ভারত উপমহাদেশের বহু ছাত্রছাত্রী সেখানে অধ্যয়ন করে। সুতরাং মুসলিম বিশ্বের অনেক আধুনিকমনা লেখক যারা মুসতাশরিকদের ন্যায় চিন্তাধারার অধিকারী তারা এই প্রতিষ্ঠানের ফসল।

এখানে শিক্ষা দেওয়া হয়-
১. মধ্যপ্রচ্যের ইতিহাস।
২. বিংশ শতাব্দীর আরবদের চিন্তাধারা।
৩. মুসলিম ভারতের ইতিহাস।
৪. ইতিহাস-ঐতিহ্য। এতে পবিত্র কুরআন, পবিত্র সীরাত, আকাঈদ এবং বিভিন্ন সংস্থার ইতিহাস অন্তর্ভুক্ত।
৫. ইসলামি সভ্যতার আদর্শ যুগের ইতিহাস।
৬. ফাতেমিদের ইতিহাস।
৭. মধ্যযুগীয় ইসলামি সভ্যতার ইতিহাস।
৮. ইসলামি চিন্তাধারার উত্থানের নিরীক্ষা।
এ ছাড়া তাফসির, ইসলামি দর্শন, উসূলে ফিকাহ, তাসাউফ, শিয়া মতাদর্শ, ইসমাঈলী চিন্তাধারা, ইরান ও পাকিস্তানে ইসলামের উত্থানের, ইসলামের পুনর্জাগরণের আন্দোলনসমূহ, মৌলবাদের আন্দোলন। মুসলিম দেশসমূহের সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিবর্তনের মতো বিষয়বস্তু ও বিভিন্ন শ্রেণিতে পাঠ্যক্রমের অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

মুফতি ত্বকি উসমানি দামাত বারকাতুহুম লিখেছেন, এ বিষয়তো পরিস্কার যে, এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্য ইসলামকে সত্য ধর্ম মনে করে তার হিদায়াত ও শিক্ষানির্দেশ দ্বারা উপকৃত হওয়া নয়। এখানকার বেশিরভাগ অমুসলিম, যারা নিজেদের গবেষণা ও সন্ধানের বিষয়বস্তু ইসলাম ও মুসলমানকে বানিয়েছে। তারা সমগ্র মুসলিম জাহানে ইসলামের নামে নানান ইজম, মতবাদ, দর্শন, তথ্য এবং গবেষণালব্ধ ফেৎনা ক্রমশ ছড়িয়ে দিয়ে উম্মাহকে খণ্ড-বিখণ্ড ও নাজেহাল করে তুলছে।

এখন যদি আমরা একটু অনুসন্ধিৎসু নয়নে চিন্তা করি যে, তাদের সুবিন্যস্ত এসব কার্যক্রমের বিপরীত আমাদের কতটুকু প্রস্তুতি রয়েছে। আমাদের আজ অসহায়ের মতো তাকানো ছাড়া আর কি আছে। আমাদের গবেষণার দৌড়, হাদিস চর্চার ব্যাপ্তি ও গভীরতা, তাফসির শ্রাস্ত্রে বিদগ্ধতা ,ইতিহাস গবেষণা হতাশা ছাড়া কিছুই নয়। পাশাপাশি শিক্ষাকে মূল স্রোত থেকে বিচ্ছিন্ন করার ফলে আধুনিক জ্ঞান বিজ্ঞানের সকল অনুষদ অনৈসলামিকদের হাতে বন্দি। বুদ্ধিভিত্তিক কাজ ও গবেষনায় ক্রমশ মূলধারার ইসলামিকরা বিচ্ছিন্ন হয়েই দ্বীনী খেদমতের তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন। বিশ্বব্যাপি আমাদের ইলমচর্চা ব্যাপকতা লাভের সুযোগ পাচ্ছে না। আমাদের দ্বীনী শিক্ষার সংকীর্ণতা দিয়ে আধুনিক বিশ্বে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছি না। তাদের বুদ্ধিবৃত্তিক তৎপরতার মোকাবিলা করার পরিবেশ ও গবেষণা আমাদের চিন্তা চেতনা থেকে বহু দূরে।

বিধর্মীদের বুদ্ধিভিত্তিক এসব সাঁড়াশি আক্রমণের বিপরীত আমরা সেই কবেকার পুরানো বিষয়াবলিকে আঁকড়ে ধরে নিজেদেরকে দ্বীনের মহান রক্ষক ও।সেবক ভেবে তৃপ্তির ঢেকুর তুলছি আর নিশ্চিন্তে আরামে ইসলামি শিক্ষার ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হওয়ার নীল ও রঙ্গীন স্বপ্ন দেখছি। আমাদের সেই স্বপ্নীল মোহ কখন যে ভঙ্গ হবে। তা আল্লাহই ভাল জানেন।

লেখক : তরুণ গবেষক ও গ্রন্থকার

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

ইরাকের অভ্যন্তরে হস্তক্ষেপ বন্ধ করুন: আমেরিকাকে মুকতাদার হুঁশিয়ারি

কমাশিসা: ইরাকের প্রভাবশালী শিয়া ধর্মীয় নেতা মুকতাদা আল-সাদ্‌র তার দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে আমেরিকার হস্তক্ষেপের তীব্র ...