সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ১২:০২
Home / খোলা জানালা / কওমি মাদরাসা সংস্কার: ‎মৌলিক না আংশিক?‎ (৩)

কওমি মাদরাসা সংস্কার: ‎মৌলিক না আংশিক?‎ (৩)

madrasaহাফিয মাওলানা ফখরুযযামান : দারসে নেযামির ত্রুটি ও এর প্রতিকার‎

আমার বুকের এমন পাটা নেই যে, দারসে নেযামিতে কী কী ত্রুটি রয়েছে তা নির্ণয় করে ব্যবস্থাপত্র দিব। তা হবে পাগলের ‎প্রলাপ মাত্র। তবে যে সব মনীষীদেরকে আল্লাহ সে যোগ্যতা দিয়েছেন।যাদেরকে আমরা এর যোগ্য বলে ভাবি। যাদের ‎কাছে জাতি সময়ের চাহিদানুযায়ী ব্যবস্থাপত্র পেতে চায়। তাদেরই কিছু উক্তি আমি নিম্নে উল্লেখ করছি মাত্র। আশা করি ‎এতে দোষের কিছু নেই। ওইসব উক্তিকারী ব্যক্তিগণ যেমন আমাদের বাংলাদেশের অধিবাসী, তেমনি রয়েছেন আমাদের ‎পাশ্ববর্তী ভারত পাকিস্তানেরও। ‎

আমি প্রথমেই আমাদেরই স্বজাতি, স্বদেশী আলিম, যার নামের সাথে বাংলাদেশের আলিমসহ প্রায় সকল নাগরিক কমবেশি ‎পরিচিত। সেই আল্লামা শামসুল হক ফরিদপুরি রাহ.’র উক্তিটিই উল্লেখ করছি।তিনি বলেন, “আমি দারসে নেযামির ‎পক্ষপাতি, তাছাড়া অন্য কোন শিক্ষা ধারার পক্ষপাতি নই্; কিন্তু দারসে নেযামির হাকীকত আজকাল লোকেরা বুঝছে না। ‎পূর্ব যামানার একটি শখছিয়াত (ব্যক্তিত্ব)-কে হাকীকত মনে করছে। দারসে নেযামির হাকীকত এই যে, শুধু “মা’কূলাত” ‎অর্থাৎ যুক্তি ও তর্ক শাস্ত্র বা জ্ঞান-বিজ্ঞান অথবা শুধু “মানকূলাত” অর্থাৎ কুরআন-হাদিস পড়ানো উচিত নয়। বরং ‎মানকূলাত ও মা’কূলাত একত্রে পড়নো উচিত। মা’কূলাতের কোনো সীমা নেই। যামানা যেমন বাড়তে থাকবে,মা’কূলাত ‎‎তেমন বাড়তে থাকবে- যা দ্বারা আকল বাড়ে। আল্লাহমুখী বিজ্ঞানই বিজ্ঞান। নাস্তিকতার বিজ্ঞান বিজ্ঞান নয়, ধৃষ্ঠতা ও ‎অন্ধত্ব বৈ আর কিছু নয়। কাজেই হাদিস ও কুরআনের আলোর দ্বারা আলোকিত সমস্ত মা’কূলাত (যুক্তি-তর্কশাস্ত্র) ও ‎সাধারণ বিজ্ঞানকে আলোকিত করতে হবে এবং হাল ধরে রাখতে হবে।” ‎

এ-তো গেল ফরিদপুরি সাহেবের দারসে নেযামি সম্পর্কে তাঁর ইজমালী মন্তব্য। এখন আমি দেওবন্দের প্রথম সারির সূর্য ‎সন্তানদের এ ব্যাপারে বিষয়ভিত্তিক মন্তব্য পেশ করছি। ‎

প্রথমেই আমি আল্লামা ইউসূফ বিন্নুরির কথা উল্লেখ করছি। তিনি বলেন, দ্বীনি মাদরাসাগুলোতে বর্তমানে যে নেসাব চালূ ‎রয়েছে, হাদিস ও ফিক্হের কিতাবাদি বাদ দিলে অধিকাংশই হিজরি সপ্তম শতাব্দী ও তার পরের যুগের স্মারক। যখন ‎‎থেকে প্রকৃত অর্থে মুসলমানদের অধঃপতন ও নিম্নগামিতা শুরু হয়, উম্মতের প্রথম যুগের মনীষীদের যেসব গ্রন্থাদিতে ‎ইলমের প্রাণ শক্তি বজায় ছিল, ভাষা ছিল সাবলীল ও স্বচ্ছ, সূত্র ও নিয়ম ছিল সুস্পষ্ট, যাতে বাক্যগত দুর্বোধ্যতা ছিল না; ‎অপ্রয়োজনীয় আলোচনা ছিল না; যা অধ্যয়ন করলে সঠিক অর্থেই মন মস্তিষ্ক প্রভাবিত হত; সময় নষ্ট হত না; মস্তিষ্কে চাপ‎পড়ার আশঙ্কা ছিল না; সে সবের জায়গায় এমন সব কিতাব এসেছে যাতে বেশি নৈপুণ্য মনে করা হয়েছে ‎সংক্ষেপকরণকে। বেশি জোর দেওয়া হয়েছে শাব্দিক আলোচনার ওপর, শাব্দিক চুলচেরা বিশ্লেষণ শরু হয়েছে। এরূপ ‎বললে অত্যুক্তি হবে না যে, কাগজ যদিও অল্প ব্যয় করা হয়েছে, কিন্তু তা আয়ত্ত করতে সময় ও মেধা বেশি ব্যয় করা ‎হয়েছে। এটিকে বিরাট দক্ষতা মনে করা হয়েছে যে, পাঠ এতই সুক্ষ্ম ও গভীর হতে হবে যার জন্যে ব্যাখ্যা ও টীকা ‎টিপ্পনির প্রয়োজন পড়ে। কয়েকটি ব্যাখ্যা ছাড়া তা উপলব্ধি করা সম্ভব হয় না। এ যদি বিদ্যা বিলাসিতা না হয়, তাহলে ‎আর কি হতে পারে? আমার স্থুল চিন্তায় এ ছিল ইলমের সবচেয়ে বড় বিপদ। এতে ইল্ম ও ইসলামি জ্ঞানের বিরাট ক্ষতি ‎হয়েছে। ‎

আমাদের বর্তমান পাঠ্যসূচির গুরুত্বপূর্ণ নাহবের কিতাব শরহে জামি ও কাফিয়া সম্পর্কে তার মন্তব্য শুনি। তিনি বলেন, ‎ইবনে হাজিবের কাফিয়ার কথাই ধরুন। এর পঞ্চাশের অধিক ব্যাখ্যা গ্রন্থ লেখা হয়েছে। এ সবের মধ্যে অন্যতম মুল্লা ‎জামীর শরাহ আর এর টীকা গ্রন্থসমূহের তালিকা তৈরি করতে পূরো এক খাতা লাগবে। এরপর তার শরহে আবদুল ‎গফুরের কথা ধরুন। এর তাকমিলাহ লিখেছেন আবদুল হাকীম সিয়ালকোটি। এ দুয়ের শরাহ “দাফেউত তাওয়াহহুমাত” ‎‎দেখুন। তেমনি ইবনে মালিকের আলফিয়া এর শরাহসমূহ, আবার শরাহের শরাহ এরপর এর শরাহ সাব্বান দেখুন সপ্তম‎খণ্ডে। সারা জীবন এটিই দেখে শেষ করতে হবে।‎

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

কে সেই আনাস মাদানি? কি তার পরিচয়?

কমাশিসা ডেস্ক: ১৬ সেপ্টেম্বের ২০২০ইং ঘটনার সুত্রপাত। বাংলাদেশের প্রাচিনতম ও বৃহৎ কওমি মাদ্রাসা দারুল উলুম ...