বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ বিকাল ৪:৩১
Home / অনুসন্ধান / মাদরাসায় ইতিহাস পাঠ …

মাদরাসায় ইতিহাস পাঠ …

লাবীব আব্দুল্লাহ::

খসড়া প্রস্তাব( 21)

মাওলানা মুহাম্মদ মিঞাঁ রহ লিখিত তারীখুল ইসলাম পড়ানো হয় মীযান জামাতে৷ সীরাতের শুধু নাহবেমীর জামাতে সীরাতে খাতামুল আম্বিয়া৷ মুফতী মুহাম্মদ শফী রহ কিশোরদের জন্য লিখেছেন সীরাত৷ হেদায়েতুন্নাহু জামাতে খেলাফতে রাশেদা পড়ানো হয় অংশ বিশেষ৷
তারীখ, সীরাত ও খেলাফতে রাশেদা উর্দু ভাষায় লেখা৷
মেশকাত বা ফযীলত মারহালায় গবেষক আলেম মাওলানা আবুল ফাতাহ মুহাম্মদ ইয়াহইয়া দা বা লিখিত “দারুল উলূম দেওবন্দ: ইতিহাস ঐতিহ্য অবদান” মূল্যবান বইটি সিলেবাসভুক্ত৷ আমি যখন এই বিষয় পরীক্ষা দেই তখন তাহরীকে দেওবন্দের ওপর বাংলায় কোনো কিতাব ছিলো না৷ বেফাক পরীক্ষায় এ বিষয়ে আমার মার্ক ছিলো 96 ৷

দুই
যে জাতির অতীত নেই, তাদের বর্তমান ও ভবিষ্যত নেই৷
আমাদের তো খেলাফতে রাশেদার সোনালী যুগ আছে৷ আছে ইউরোপ জয়৷ আছে জাবালুত তারিক পারি দিয়ে স্পেন বিজয়৷ আছে আব্বাসীয়, উমাইয়া, ফাতেমীয় ও তুরস্কের খেলাফত৷ মুসলিম শাসকদের আফ্রিকা জয়, ভারত শাসনের গৌরবময় ইতিহাস আছে৷
মুসলিম উম্মাহর জীবনে অতীত হয়ছে জয় পরাজয়ের নানা ইতিহাস৷ বীর সালাহুদ্দীন ও সুলতান মাহমুদ গজনবী, বঙ্গ বিজয়ী ইখতিয়ার উদ্দীন বিন বখতিয়ার খিলজীর মতো হাজারো ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব আছে আমাদের৷
আছে ইবনে কাসিম ও বাদশাহ আলমগীর৷
লালকিল্লা, তাজমহল ও কুতুব মিনার মুসলমানের গৌরবগাঁথা ঘোষণা করে আজও৷
তবে আমাদের ইতিহাসে স্পেনের কান্নাও আছে৷

তিন
দ্বিজাতি ত্বত্ত্বের ভিত্তিতে দেশভাগ, বঙ্গভঙ্গ, লাহোর প্রস্তাব, ছয় দফা, এগারো দফা, আগরতলা, ভাষা আন্দোলন, 7 ই মার্চ, স্বাধীনতার ঘোষণা, বিজয় দিবস এবং বাংলাদেশের হাজার বছরের ইতিহাস আছে আমাদের জীবনে৷

চার
14 খন্ডের তারীখে বাগদাদ, 80 খন্ডের তারীখে মাদীনতি দামেশক, তারিখে তাবারী, তারীখে ইবনে কাসীর,তারীখে ইবনে ইসহাক,তারীখে ইবনে হিশাম এবং আমাদের আছে আল মিলাল ওয়ান নিহালের মতো কিতাব৷
ইবনে খালদুন তো জনক ইতিহাসের৷
পাঁচ
মুস্তাশরিকীন বা ওয়ারিয়ান্টালিস্টরা আমাদের ইতিহাস বিকৃত করে তবুও বি বি সি আমাদের ডুকুমেন্টারি উপহার দেয় islam and science,
An islamic History of Europe ৷
ছয়
মুসলিম উম্মাহর জীবন সংগ্রাম ও বিজয়ের ইতিহাস৷ আবিস্কার ও স়জনের ইতিহাস৷
সেই মুহাম্মদ মিঞাঁর উলামায়ে হিন্দ কা শান্দার মাঝি আছে তিন খন্ডে৷ তারিখে দারুল উলূম দেওবন্দ চার খন্ডে সমাপ্ত৷
আরও আছে হাজার কিতাব ইতিহাসের ওপর লেখা৷

প্রস্তাবনা:
কওমী মাদরাসায় বাংলা ভাষায় ইতিহাস পড়ানো হোক৷
প্রয়োজনে খোলা হোক “তাখাসসুস ফিত তারীখ” বা ইতিহাসও সংস্কৃতি বিভাগ
অন্যথা শেকড়হীন তালেবে ইলম হীনমন্যতার শিকার হবে৷
“মুসলিম আমি সংগ্রামী আমি
আমি চির রন বীর”

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

পুলিশি নির্যাতনে হত্যার বিচার চাইবেন কার কাছে?

ডক্টর তুহিন মালিক: (১) মাত্র ১০ হাজার টাকার জন্য সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে যুবককে রাতভর নির্যাতন ...