বুধবার, ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ৪:১০
Home / আন্তর্জাতিক / এপ্রিল ফুল দিবস : তথ্য-বিভ্রাট করে মুসলিমরাই কি একে অন্যকে বোকা বানাচ্ছে, ধোঁকা দিচ্ছে

এপ্রিল ফুল দিবস : তথ্য-বিভ্রাট করে মুসলিমরাই কি একে অন্যকে বোকা বানাচ্ছে, ধোঁকা দিচ্ছে

ফাহিম বদরুল হাসান
‘এপ্রিলফুল’। দিবসটি এপ্রিল মাসের প্রথম দিন পালন করা হয়। এর উদযাপন হচ্ছে মূলতঃ “মানুষকে বোকা বানানো”। এই দিনে একজন আরেকজনকে মিথ্যা কথা বলে, আশ্বাস দিয়ে, প্রতিশ্রুতি দিয়ে কিংবা মোবাইলে prank call/massage দিয়ে বেকুব বানায়। এটা কোনোভাবেই ইসলাম সমর্থন করে না। মিথ্যার আশ্রয়ে কারো সাথে জোক করা যে হারাম, এটাতে কেউ দ্বিমত করে না। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনকভাবে এই এপ্রিলফুলের সাথে স্পেনের মুসলিমদের উপর চালিত জেনোসাইডকে জড়িয়ে দিয়েছেন। যা ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণিত নয়। এই দিবসের উৎস ও ইতিহাস সম্পর্কে তথ্য এবং তত্ত্বের মধ্যে রয়েছে, ব্যাপক মতানৈক্য। অনুসন্ধান করলে এপ্রিলফুল’র আদিতে পাওয়া যায়, হরেক জাতির হরেক ইতিহাস। এপ্রিলের সাথে গ্রীকদের ধর্মীয় ফেস্টিভাল যেমন জড়িত, হিন্দু ধর্মের ‘হুলি-উৎসব’ও জড়িত রয়েছে বলে বিদ্যমান। তন্মধ্যে গ্রহণযোগ্যতার দিক থেকে সর্বাধিক অগ্রগণ্য রয়েছে, ফ্রান্সের ক্যালেন্ডার পরিবর্তনের ঘটনা।
বলা হয়, ১৫৬৪ সালে ফ্রান্স কর্তৃপক্ষ মার্চ মাসের ২৫ তারিখ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত বছরের শেষ-সপ্তাহ ঘোষণা করে, এপ্রিলের ১ তারিখ থেকে নতুন বছর শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু পরের বছর কেউই তা করলো না, বরং আগের মতই ১লা জানুয়ারি থেকে বছর শুরু করলো। এতে ক্যালেন্ডার পরিবর্তনে উদ্যোগীরা বোকা বনে গেল। এটাকে তারা ‘poisson d’Avril’ (এপ্রিলের মাছ) বলে। (poisson d’Avril হচ্ছে, ফরাসি phrase যা কাউকে ‘বোকা’ বোঝাতে বলা হয়।)
এপ্রিলফুলের ইংল্যান্ডভিত্তিক রয়েছে আরো দু’টি ঘটনা। প্রথমটি ১৬৯৮ সালের। সেই বছরের ১লা এপ্রিল সেন্ট্রাল লন্ডনে ‘The Lion Washed’ তথা ‘সিংহ ধৌতকরণ’ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হল। কিন্তু সেদিন হাজার হাজার দর্শানার্থী গিয়ে দেখল, কিছু নিগ্রো লোককে গোসল করানো হচ্ছে। দর্শানার্থীরা গিয়ে তো পুরাই বেকুব বনে গেল। এভাবেই মানুষদের বোকা বানানো হয়েছিল।
আরেকটি ঘটনা পাওয়া যায় ১৭৪৬ মতান্তরে ১৭৬৪ সালের। সে বছরের Evening Star পত্রিকায় মার্চের শেষসপ্তাহে প্রকাশিত হল, আগামী ১লা এপ্রিল ইংল্যান্ডের ইসলিংটন’এ একটি গাধার প্যারেড হবে। নির্ধারিত দিন হাজার হাজার লোক সেথায় সমবেত হল। কিন্তু সারাদিন অপেক্ষা করেও প্যারেড অনুষ্ঠিত হল না। দিনশেষে ওরা বুঝতে পারলো, তাদেরকে গাধা বানানো হয়েছে। এভাবেই ওরা বোকা বনেছিল।
এরকম আরো অনেক কাহিনী রয়েছে। তবে এগুলোর সাথে ইসলামের কিংবা মুসলমানদের কোনো সম্পৃক্ততার সত্যতা কোনো সোর্সই প্রমাণ করে না। কিন্তু অত্যন্ত ব্যাপকভাবে এপ্রিল ফুলকে চতুর্দশ শতাব্দিতে স্পেনে ঘটে যাওয়া জেনোসাইডের সাথে গুলিয়ে ফেলা হয়েছে, হচ্ছে! যা খুবই নিন্দনীয়।
১৪৯২ সালে তদানীন্তন স্পেনের গ্রানাডা বা বালেন্সিয়ার সম্রাট মুসলমানদের সাথে চুক্তি করবে বলে, মসজিদে একত্রিত হতে বলেছিল। মুসলমানরা একত্রিত হলে অত্যন্ত নির্মমভাবে মসজিদে আগুন ধরিয়ে সকল মুসলমানদেরককে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এই কাপুরুষিত, লৌমহর্ষক ঘটনাটা হয়েছিল ২রা জানুয়ারি, মতান্তরে ৯ই এপ্রিল। এটাকে পহেলা এপ্রিলের সাথে অর্থাৎ ‘APRIL FOOL’S DAY’ এর সাথে কোনোভাবেই সংযুক্ত করা যায় না।
আমাদের মনে রাখা উচিৎ, ইসলাম যেভাবে নিষিদ্ধ করেছে মিথ্যা কথা বলে, অনৈতিক আচরণের মাধ্যমে কাউকে বোকা বানানো; ঠিক তেমনি নিষিদ্ধ করা হয়েছে না জেনে কোনোকিছু প্রচার করা। রাসুল সাল্লাল্লাহূ আলাইহিসালাম বলেন, “সবচে’ বড় মিথ্যাবাদী হচ্ছে সেই ব্যক্তি, যে কোনো কিছু শোনার পর যাচাই না করে তা অন্যের কাছে বলে দেয়।”
লেখক : ফাহিম বদরুল হাসান
সহকারী সম্পাদক
নবকন্ঠ, ফ্রান্স।

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

কওমি মাদরাসা কল্যাণ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ

খতিব তাজুল ইসলাম ট্রাস্টের প্রয়োজনীয়তাঃ কওমি অংগন একটি স্বীকৃত ও তৃণমূল প্লাটফর্ম। দেশ ও জাতির ...