মঙ্গলবার, ১৬ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ১:২৪
Home / অনুসন্ধান / ভারত সিকিম দখলের আগেও সিকিমে অরাজকতা, হামলা, গুপ্ত হত্যা শুরু হয়েছিল !

ভারত সিকিম দখলের আগেও সিকিমে অরাজকতা, হামলা, গুপ্ত হত্যা শুরু হয়েছিল !

অন্যমিডিয়া ডেস্ক: সিকিমে ভারতীয় বাহিনীকে ডাকার আগে চারিদিকে অরাজকতা, হামলা, গুপ্ত হত্যা শুরু হয়েছিল। ঠিক আজকের বাংলাদেশের আধুনিক ভার্সন জঙ্গি হামলার মত। এসব থামাতে ভারতের বসানো সিকিমের প্রধানমন্ত্রী সংসদে বসে ভারতীয় বাহিনী ডেকে আনার বিল পাশ করে। তারপরের ইতিহাস বড়ই করুন। সিকিম আজ ভারতের অঙ্গরাজ্য….

সিকিম বাংলাদেশ এক জিনিস না এটা ভারতকে বুঝতে হবে। সিকিমের খেল এখন বাংলাদেশে খেললে বুমেরাং হবে ভারতের জন্য। মুঘল সম্রাজ্য এই বাংলাকে নাম দিয়েছিল বুলঘকপুর, মানে বিদ্রোহের দেশ! দেখা গেছে মুঘল সাম্রাজ্য বাংলার জনগনকে প্যাদিয়ে বাংলা দখল করে নিছে। বাংলার শাসক ও জনগন প্যাঁদানি খেয়ে চুপ মেরে থেকেছে। আবার দুদিন পরে কোথাকার ঈসা খা বিদ্রোহ করে বাংলার স্বাধীনতা ঘোষনা দিয়া বইয়া আছে। মুঘল সম্রাট বাংলাকে প্যাদাতে আবারো দিল্লি থেকে রওনা দিয়েছে। এভাবে অনেকবার আশা যাওয়া করেও বাংলাকে তারা ধরে রাখতে পারেনি। মুঘল, ইংরেজ, পাকিস্তান কেউ এই এলাকা শান্তিমত নিজেদের হাতে রাখতে পারেনি.

৭১ এর আগে কয়েকবার ভারতের সাথে পাকিস্তানের যুদ্ধ হয়েছে। পাকিস্তানী সেনারা ভারতের কলিজার ভিত্রে ঢুইকা তখন বোমা মাইরা আইছে। বিশ্বের সবচেয়ে সাহসী ও শক্তিশালী বাহিনী ছিল পাকিস্তানের। সেই পাকিস্তানী বাহিনীকে বাংলার লুঙ্গি পড়া চাষারা প্যাদিয়ে এলাকা এছাড়া করেছে। কিন্তু শুরুতে যখন পাকিস্তানী বাহিনী মাইর দেওয়া শুরু করেছিল তখন বাপ বাপ করে বাঙালী আত্ব সমর্পণকারী করেছিল। কিছু পাবলিক ভয়ে ভারতে পালালো আর বঙ্গবন্ধু নিজে পাকিস্তানীদের হাতে ধরা দিল। একটা সময় সেই আমরা ঘুরে দাঁড়িয়ে এলাকা ছাড়া করেছি পাকিস্তানী সেনাদের।

আমাদের চরিত্র খুবই আনপ্রেডিক্টেবল। আমাদের নিয়ে খেলা করা মসিবত। এই আনপ্রেডিক্টেবল জাতি নিয়ে ভারতের খেলা করা আত্বঘাতি হবে। ভারতীয় বাহিনী ঢুকানো বা সামরিক চুক্তি করা পুরাই বোকামী হবে ভারতের জন্য। গুম, হত্যা, জঙ্গি হামলার নিচ দিয়া পাবলিকরে ভীত করে দেওয়া যাবে। সেই ভীতিকর বাঙালীকে দেখে ভুল বুঝবেন না। সিমান্তে মাঝে মাঝে বাংলাদেশের মানুষ মারতেছেন এইডা নিয়েই খুশি থাকা উচিৎ ভারতীয় বাহিনীর। এর থেকে বেশি কিছু চাইতে গেলে যেকোনো সময় পাদুয়ার ঘটনা ঘটে যেতে পারে। তখন নিজেদের লাশ নিয়ে যাওয়ার মত কাওকে খুঁজে নাও পাওয়া যেতে পারে।

ভারত আমাদের প্রতিবেশি, বড় ভাই এক প্রকার। শাসন শোষণ যা করার করতেছেন, করেন।

আনপ্রেডিক্টেবল, পাগলা ছুডো ভাইয়ের পশ্চাদে বারবার আঙুল দিয়া চ্যাতায় দিয়েন না। দেখা গেল কখন ছুডো ভাই রাইগা মাথার উপর বাঁশের বারি দিয়া দিবো তখন আবার গোস্যা কইরেন না।

সুত্র: https://24banglanewsblog.wordpress.com/

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

আল্লামা আহমদ শফীকে কি আসলেই তিলে তিলে হত্যা করা হয়ছে?

আল্লামা শফী সাহেবের মৃত্যু নিয়ে ওনার খাদেম  শফীর সাক্ষাৎকার। সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছে ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০। ...