সোমবার, ২৭শে মে, ২০২৪ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সকাল ৬:২৬
Home / দেশ-বিদেশ / মুহাম্মাদ সুলতান একজন সরল আদর্শের প্রতিভু

মুহাম্মাদ সুলতান একজন সরল আদর্শের প্রতিভু

খতিব তাজুল ইসলাম :

ব্যাংগর বা Bangor বৃটেনের নর্থ ওয়েল্সের একটি সিটি। খুব বড় না হলেও ব্যাংগর ইউনিভর্সিটির কারণে এলাকাটি প্রসিদ্ধ। কয়েকশত বছরের পুরোনো ঐতিহ্যমণ্ডিত ব্যাংগরে এই প্রথম আগমন। মুহাম্মাদ সুলতান সাহেবের সাথে আগে ফোনে কথা হয়েছে। কাউন্সিলর সুলতান হিসেবে একবাক্যে যার পরিচিতি। দানশীল, সদালাপি, শিক্ষানুরাগী, মানবসেবক, সমাজহিতৈষী, পরিবেশ সুরক্ষার এক অগ্রপথিক কাউন্সিলর মুহাম্মাদ সুলতান একজন সফল ব্যাসসায়ীও বটে।

৯৯.৯৯% পার্সেন্ট শাদা লোকদের এরিয়ায় শাদাদের পরাজিত করে ব্যাংগর সিটির কাউন্সিলর হওয়া চট্টিখানি কথা নয়। নিজের কর্মদক্ষতা, সর্বজন প্রিয়তাই তাকে সম্মানের উচ্চশিখরে পৌঁছিয়েছে।

প্রিন্সিপ্যাল হাবীবুর রাহমান সাহেবের সফর স্থীর হলো ব্যাংগর যাওয়া। আমি, মাওলানা ইউসুফ ও সাথে ড্রাইভ করছিলেন শাহনুর সাহেব। যিনি মুহাম্মাদ সুলতান সাহেবের সম্পর্কে শ্যালক। প্রিন্সিপ্যাল সাহেবের সাথে শাহনূর সাহেবের এতো মধুর সম্পর্ক তা আগে আমার জানা ছিলো না। সফরের শুরু এবং শেষের ৬০০ ছয়শত মাইলের পথ এতো মধুময় কেটেছে যা ভাষায় প্রকাশ করা মুশকিল। বাকপটু শাহনুর সাহেবের সাথে প্রিন্সিপ্যাল হজরতের মিষ্টি মিষ্টি কমেন্ট যেন সোনায় সোহাগার মত।

ব্যাংগর সিটিতে একটিমাত্র জামে মসজিদ। শাদা কালো এশিয়ান সবাই মিলে একসাথে উঠাবসা। আমাদের বলা হলো এশার জামাতে এসে শরিক হতে। কিন্তু রাস্তার দূরত্ব তা হতে দিলো না। যখন উপস্থিত হয়েছি ততক্ষণে অনেক দেরী। প্রিন্সিপ্যাল হজরতের তবিয়ত খুব ভাল না। অগত্যা আমাকে বলা হলো তিনির পূর্বে দু’চারটি কথা রাখতে। কারণ রাত ১০টা থেকে বাংলাদেশিদের নিয়ে আলোচনা। সুলতান সাহেব খুব পরিশ্রম করে মাহফিলের আয়োজন করেছেন। দেখলাম নিজের পকেট থেকে শত শত পাউন্ড খরচ করে আগতদের জন্য নিয়ে এসেছেন বিভিন্ন রকমারি খাবার। শাহনুর সাহেব একটু আগে আমাকে নিয়ে এলেন মসজিদে। শাদা তরুণ দুইজন তারাও ওয়াজ শুনবে। আররি পাকিস্তানিও আছেন। ভুমিকা শেষে মূল আলোচনার বেশিদূর এগুতে পারি নি। হজরত তাশরিফ নিয়ে এসেছেন। তাও শাদালোকের জবানে। ইলম জ্ঞান নলেজের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে ছিলো আলোচনার বিষয় বস্তু।

হজরত তাশরিফ নিয়ে আসতেই আমি থেমে গেলাম। সাগরে পুটি মাছের লাফালাফি আর কত? রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিশ্ববাসির জন্য অফুরন্ত এক নিয়ামত। এই বিষয়ের উপর সারগর্ব আলোচনার পর জামেয়া মাদানিয়া ইসলামিয়ার জন্য শুরু হলো আপীল। মাদরাসার ইলেকট্রিক বিল ৯লক্ষ টাকা বাকি। প্রবাসিগণ মন উজাড় করে ওয়াদা করেছেন। ওয়াদাকৃত এমাউন্টগুলো পরিশোধ হলে বিলের বকেয়া থেকে জামেয়া মাদানিয়া আশা করা যায় কিছুটা হলেও মুক্তি পাবে।

মাহফিল শেষে দেখলাম সুলতান সাহেব নিজে আগতদের মাঝে খানা বণ্টন করছেন। আমাদের আগে ঘরে পাঠিয়ে সর্বশেষ ব্যক্তি সেখানে অবস্থান করা পর্যন্ত তিনি সেখানে থাকলেন। সুলতান সাহেব চাইলে রাজমহল বানাতে পারতেন। ইসলাম ও মানবতার জন্য করেছেন জীবন উৎসর্গ। তারপরও বাংলো স্টাইলের বিশাল ঘর। আধুনিকতার বদলে ইসলামি রিতীতেই গোছালো ঘর। ঘরে পা রেখেই বুঝা যায় কে কোন মানসিকতার! কি তার রুচি। উপরের দু’টি কামরা আমাদের জন্য ছেড়ে দিছেন। আমাদের এতো আপন করে নিছেন দেখে বুঝতে পারলাম এই লোকটাকে কেন ব্যাংগরবাসি বেছে নিয়েছে। সত্যিই তিনি কমিউনিটির নেতৃত্বের যোগ্য।

পরদিন নাস্তা পর্ব শেষে ব্যাংগর সিটি ঘুরে দেখার পালা। নিজের শত ব্যস্ততাকে কুরবান করে অর্ধদিবস নিয়ে ঘুরে দেখালেন। আটলান্টিকের অববাহিকায় লোনা সাগরের শান্ত ঢেউ বিশাল কাচের দেয়ালের মত আছড়ে পড়া দেখার মত। বৃটেনের সবচেয়ে উচু পাহাড় নাকি এই ব্যাংগরের চুড়া। পাহাড়ের গায়ে কালো দাগ দেখিয়ে বললেন যে পুরা ইউরোপের কালো স্লেডের সাপ্লাই এখান থেকে হয়। দুই পাহাড়ের মাঝদিয়ে লতার মত পাকা রাস্তার পাশদিয়ে বয়ে চলা স্বচ্ছ পানির ঝর্ণা পরিবেশের সৌন্দর্যকে করেছে আরো মায়াবী।

আমাদের নিয়ে দেখালেন ব্যাংগরের পুরাতন কেল্লা। কেল্লার একটি বেলকনি গ্লাসে মোড়ানো। এখানে দাড়িয়ে নাকি প্রিন্স চার্লস ও প্রিন্সেস ডায়নার অভিষেক হয়েছিলো। ব্যাংগর সিটির একটি এলাকার পুরাতন নাম নাকি পৃথিবীর সাচেয়ে লম্বা নাম। কয়েকশ অক্ষরের নামটা ক্যামেরায় বন্দী করাও ইজি ছিলোনা। এই নামের সঠিক উচ্চারণের কেউ পৃথিবীতে বেচে আছে কিনা আমার সন্দেহ আছে।

১৯৭৯ এ যিনি এসে ব্যাংগরে বসত গেড়েছিলেন ২০১২ এ এসে হলেন সিটি কাউন্সিলার। ৫ কন্যা ও ১ ছেলের জনক সুলতান সাহেবের সহধর্মিনীর ইসলামপ্রীতি আরো উজ্জল। আলেম উলামাদের প্রতি শ্রদ্ধা, সামাজিক কাজে স্বামীকে উৎসাহ প্রদান তাকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে গেছে। বিলেতের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনেও তিনি রাখছেন অসামান্য অবদান। প্রতি বছর বাংলাদেশে গিয়ে বিভিন্ন মসজিদ মাদরাসা স্কুল কলেজ হাসপাতাল ইত্যাদিতে সমান সহায়তা করে যাচ্ছেন। জন হিতৈষী মানবপ্রেমিক আল্লাহওয়ালা এই মহান ব্যক্তিত্বের সুন্দর সুস্বাস্থ্য দীর্ঘ হায়াত কামনা করছি।

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

কওমি মাদরাসা কল্যাণ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ

খতিব তাজুল ইসলাম ট্রাস্টের প্রয়োজনীয়তাঃ কওমি অংগন একটি স্বীকৃত ও তৃণমূল প্লাটফর্ম। দেশ ও জাতির ...