রবিবার, ১৯শে মে, ২০২৪ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ৮:১২
Home / খোলা জানালা / বিচারবহির্ভূত হত্যা : সরকারকে আর কীভাবে জানাতে হবে?
নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনার মামলা ছাড়া আর কোনোটির ব্যাপারে কার্যকর উদ্যোগ নেই

বিচারবহির্ভূত হত্যা : সরকারকে আর কীভাবে জানাতে হবে?

আলী ইমাম মজুমদার :

সম্প্রতি রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে একটি সেমিনার হয়। এ ধরনের সভা, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম খুবই গতানুগতিক। খবর হওয়ার মতো কিছু থাকে না। তবে আলোচ্য সেমিনারে অংশ নিয়ে আইনমন্ত্রীর একটি বক্তব্য এটাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘বিচারবহির্ভূত হত্যা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় একটি বড় বাধা।’ বক্তব্যটি খুবই মূল্যবান আর এর সঙ্গে দ্বিমত করার কোনো সুযোগ নেই। তবে এ প্রসঙ্গে তাঁর পরবর্তী মন্তব্যটি আমাদের জন্য কিছুটা বিস্ময়ের। বিভিন্ন সংবাদপত্রের মতে, তিনি বলেছেন, বিচারবহির্ভূত হত্যার সঙ্গে কেউ সংশ্লিষ্ট থাকা সম্পর্কে সরকারের নজরে আনা হলে তাঁর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিস্ময়টা এ কারণে যে বিচারবহির্ভূত হত্যা সম্পর্কে এত যে অভিযোগ, এগুলো কি সরকারের নজরে নেই? এগুলোর মাঝে নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনার মামলা ছাড়া আর কোনোটি এমনভাবে তদন্ত করে দেখা হয়েছে?
নারায়ণগঞ্জের ঘটনাটি সেখানে প্রবল আলোড়ন তুলে প্রশাসনকে প্রায় অকার্যকর করে দেয়। উচ্চ আদালতে বিষয়টি উপস্থাপিত হলে মামলা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। তখন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঘটনাটিকে আমলে নিয়ে তদন্ত ও বিচারের আওতায় নিয়ে আসে। এমন কিছু না হলে তা হতো কি না, এ সম্পর্কে অনেকে সন্ধিহান। আর এ ধরনের সন্ধিহান থাকাকে অমূলকও বলা যাবে না। অক্ষত অবস্থায় আসামিকে ধরা হচ্ছে। তাকে বা তাদের নিয়ে সহযোগীদের গ্রেপ্তারের নামে রাতের আঁধারে কোথাও যাওয়া আর দুই পক্ষের মাঝে ‘ক্রসফায়ার বা বন্দুকযুদ্ধে’ সে হতভাগ্য ব্যক্তিদের মৃত্যুকে আমরা কীভাবে আখ্যায়িত করব! ধৃত আসামিরা হয়তো মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডনীয় অপরাধও করতে পারে। তবে সে দণ্ড দেওয়ার কর্তৃত্ব তো আদালতের।
সেদিনই বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত আইন ও সালিশ কেন্দ্রের একটি প্রতিবেদনের প্রতি আইনমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি এ বক্তব্য দেন বলে জানা যায়। তাঁদের তথ্যানুসারে গত নভেম্বরে গড়ে প্রতিদিন একজন করে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। ২০১৬ সালের নভেম্বর পর্যন্ত এর সংখ্যা ১৮৪। সংখ্যাটি গত বছরে একই সময়কালে ছিল ১৭১। আর ২০১৪ সালে জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এ সংখ্যা ছিল ১৫৪। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সে প্রতিবেদন অনুসারে, এ বছরের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সময়কালে বন্দুকযুদ্ধ ছাড়াও বলপূর্বক অপহরণ, ধর্মান্ধ ব্যক্তিদের দ্বারা নিহত এবং জঙ্গিবিরোধী অভিযানে নিহত ব্যক্তির সংখ্যাও দেওয়া হয়েছে। এর সংখ্যা যথাক্রমে ৮৯, ৪২ ও ৩৩। জঙ্গিবিরোধী অভিযানে হতাহত হতেই পারে। এ ছাড়া হামলায় নিহত জঙ্গি ঘাতকদের গ্রেপ্তার ও আইনের আওতায় আনার দায়িত্বও আইন প্রয়োগকারী সংস্থারই। এ ক্ষেত্রে তারা ঈপ্সিত মাত্রায় সাফল্য দেখাতে পারছে না, এমন অভিযোগ রয়েছে।
আর বলপূর্বক অপহরণ! কখনো কখনো অপহৃত ব্যক্তিকে বেশ কিছুদিন পর বিধ্বস্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। বেশ কয়েক দিন পর কাউকে দেখানো হয় গ্রেপ্তার। আর কেউ-বা থেকে যায় অপহৃতই। ধারণা করা হয়, এদের মেরে ফেলা হয়েছে। আরও বেদনাদায়ক যে সরকারি কোনো সংস্থাই এর দায় স্বীকার করে না। যদিও-বা অপহরণের সময় কোনো না কোনো সংস্থার পরিচয় ব্যবহৃত হয়। হতে পারে কোনো সরকারি সংস্থার নাম ব্যবহার করে কোনো ক্ষেত্রে অন্য কেউ অপহরণ করে। কাউকে বিপদে ফেলতে বা নিজের কোনো অপকীর্তিকে আড়াল করতে স্বেচ্ছায়ও কেউ ‘গুম’ হয়ে যায়। আর এগুলোর সবই তো আইন প্রয়োগকারী সংস্থারই তদন্ত করে প্রকৃত তথ্য বের করার কথা। আর তারাই বেশ কিছু গুমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট, এটা মানবাধিকার সংস্থাগুলো ও সুশীল সমাজ ব্যাপকভাবে ধারণা করে। এ ধরনের অভিযোগই অপহৃত ব্যক্তির স্বজনেরা করেন।
আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হেফাজতে মৃত্যুর খবর এখন ডাল-ভাত হয়ে গেছে। চাঞ্চল্যকর কিছু না হলে খবরের কাগজের এ-সংক্রান্ত সংবাদের শিরোনামের নিচের অংশ অনেকে পড়েন না। যেমন পড়েন না সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশি হত্যার নিত্যকার ঘটনাগুলো। বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় বিচারবহির্ভূত হত্যা কত দ্রুত আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাব্যবস্থার অঙ্গ হয়ে গেছে। সরকার চাইলে এসব ঘটনার অন্তত কয়েকটি বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত রহস্য উন্মোচনের ব্যবস্থা নিতে পারে। সীমিত কিছু রহস্য উদ্ঘাটিত হলেও আইনমন্ত্রী প্রতিশ্রুত, দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব। আর এ রকম হলে সর্বত্র সংযমী হওয়ার প্রয়োজনীয়তাও উপলব্ধি করবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। আর প্রকৃত অর্থে বন্দুকযুদ্ধ করে আসামি বা তাদের সহযোগী কারও মৃত্যু হলে কিছু বলারও থাকবে না। তবে বিচারবহির্ভূত হত্যা সম্ভবত ছিল সব সময়ই। অবশ্য সেগুলো ছিল নিতান্তই সীমিত। রাখঢাকও ছিল ওগুলোতে। এ প্রক্রিয়াটি অনেকটা খোলামেলা রূপ পায় অপারেশন ক্লিন হার্ট চলাকালে। এ জন্য তাদের দায়মুক্তিও দেওয়া হয়। তারই ধারাবাহিকতায় গঠিত হয় র্যাব। এটা পুলিশ বাহিনীর একটি ইউনিট হলেও সামরিক বাহিনী, পুলিশসহ আরও কিছু সংস্থার প্রতিনিধিত্ব রয়েছে এতে। তারা ভালো কাজ করেছে এবং করছে অনেক। তবে ক্রসফায়ার নামে বিচারবহির্ভূত হত্যা তখনই ব্যাপকতা পায়। ইদানীং এ ধরনের ঘটনা র্যাবের চেয়ে পুলিশের হাতেই ঘটছে বেশি। এটা ভুলে গেলে চলবে না, আইন প্রয়োগ করতে হবে আইনানুগভাবে।
বন্দুকযুদ্ধে নিহতের ঘটনায় অনেককে গ্রেপ্তারই দেখানো হয়নি। অথচ বেশ কিছু ক্ষেত্রে স্বজনেরা বলছেন তাঁদের তুলে নিয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। সুষ্ঠু তদন্ত হলে এটাও বের করা সম্ভব। আর যাঁরা গ্রেপ্তারকৃত, তাঁদের পূর্ণ নিরাপত্তার দায়িত্ব তো গ্রেপ্তারকারী সংস্থার। এ দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার জন্যও তো ব্যবস্থা নেওয়া যায়। এগুলো সম্পর্কে সরকার কার্যত নির্বিকার বললে বাড়িয়ে বলা হবে না। এ নির্লিপ্ততায় এসব বাহিনীর মাঝে অপরাধ প্রবণতা বেড়ে যাওয়ারও আশঙ্কা থাকে। নিয়ন্ত্রণহীন ক্ষমতা কী বিপর্যয় ঘটাতে পারে তার নজির আমরা বিভিন্ন স্থানে দেখেছি।
এটা লক্ষণীয় যে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ ততটা দৃঢ় নয়। এর কারণ হিসেবে রয়েছে দলীয়করণসহ
আরও কিছু বিষয়। এতে ক্ষেত্রবিশেষে এসব সংস্থার কতিপয় সদস্য বেপরোয়া আচরণ করেন। এর ফলেই বিচারবহির্ভূত হত্যা। তা ছাড়া, সংস্থাগুলোর মাঝে অভাব রয়েছে সমন্বয়ের। র্যাব পুলিশের অঙ্গ হলেও শীর্ষ পর্যায়ে ছাড়া এর নিচে কোনো প্রাতিষ্ঠানিক সমন্বয় নেই। র্যাব গঠন ও পরিচালনা অপারেশন ক্লিন হার্টের মতো কোনো স্বল্পকালীন ব্যবস্থা নয়। ইতিমধ্যে সংস্থাটি এক যুগ পার করেছে। এর কার্যকারিতাও রয়েছে আইনশৃঙ্খলাব্যবস্থায়। সে ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির জন্য যে বা যারা আইনানুগভাবে মূল দায়িত্বে, তাদের সঙ্গে র্যাবের কার্যক্রম সমন্বয়ের প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থার প্রয়োজনীয়তা আলোচনার অপেক্ষা রাখে না।
আইনমন্ত্রী একজন সফল আইনজীবী। তিনি সজ্জন ব্যক্তি বলেই সবাই বিবেচনা করেন। দায়িত্ব পালনেও যত্নশীল। বিচারবহির্ভূত হত্যা যে আইনের শাসনের জন্য বড় বাধা, তাঁর এ বক্তব্য সময়োচিতও বটে। তবে এ উপলব্ধিটা আনতে হবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর মাঝে। মানবাধিকার বিষয়ে তাদের কিছু প্রশিক্ষণ কিংবা এ ধরনের কার্যক্রম সম্পর্কে সতর্ক করে দেওয়াই যথেষ্ট নয়। আনীত অভিযোগগুলো থেকে গুটিকয় বেছে নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের ব্যবস্থা করতে পারে সরকার। তদন্তে প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হলে প্রতিশ্রুত কঠোর পদক্ষেপ নিন। আর চালু রাখুন এ প্রক্রিয়াটি। এতে সংশ্লিষ্ট বাহিনীগুলোর ‘ট্রিগার হ্যাপি’ সদস্যরা লাল সংকেত পাবে। আর এ বিষয়ে সরকারের কাছে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ জানানোর আবশ্যকতাই-বা কোথায়? সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদের তথ্য প্রাথমিক পর্যালোচনা করে এর ভিত্তিতেই তো ব্যবস্থা নেওয়া যায়। উচ্চ আদালতও তো স্বীয় বিবেচনায় কোনো কোনো ঘটনা আমলে নেন। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের এ প্রতিবেদনটি সরকারের নজর দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। নতুন করে সরকারের নজরে আনার প্রয়োজনই-বা কোথায়?

আলী ইমাম মজুমদার: সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব।
majumder234@yahoo.com

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

ঐতিহাসিক এই সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানাই

খতিব তাজুল ইসলাম: বিগত আড়াইশত বছর থেকে চলেআাসা ঐতিহাসকি একটি ধারাকে মুল ধারার সাথে যুক্তকরে ...