শুক্রবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সন্ধ্যা ৬:৪৮
Home / প্রতিদিন / কওমি মাদরাসা শিক্ষা সংস্কার পথ ও পদ্ধতি : দারুল উলুম দেওবন্দের শিক্ষা কারিকুলামের প্রকৃতি

কওমি মাদরাসা শিক্ষা সংস্কার পথ ও পদ্ধতি : দারুল উলুম দেওবন্দের শিক্ষা কারিকুলামের প্রকৃতি

13450258_491977211013293_2291914300146829271_n
শাইখ কাজি মুহাম্মাদ হানীফ

(দ্বিতীয় পর্ব) বস্তুত : দারুল উলুম দেওবন্দের শিক্ষা ব্যবস্থা ও শিক্ষা কারিকুলাম তৈরি করার পেছনে এর প্রতিষ্ঠাতাদের উদ্দেশ্য কী ছিল তা প্রনিধাণযোগ্য। এ ক্ষেত্রে দেওবন্দের আকাবিরগণের যে মনোভাব ছিল তা হলো: ‘ইংরেজরা আমাদের রাজ্য নিয়ে গেছে। এখন  আমাদের ধর্ম ও ধর্মীয় জ্ঞানও ধ্বংস করে দিতে চাচ্ছে। রাজ্য তো রক্ষা করতে পারলাম না। অতএব ব্যক্তিগত উদ্যোগে ধর্মীয় জ্ঞান রক্ষা করার ব্যবস্থা করা হোক। যেন মুসলমানরা ব্যক্তিগতভাবে দীন ও ঈমান নিয়ে বেঁচে থাকতে পারে। ধর্মীয় জ্ঞানের ধারাবাহিকতা বজায় থাকে। তাহলে এক সময় এর মাধ্যমে কর্মীবাহিনী তৈরি করে স্বাধীনতা অর্জনের চেষ্টা করা যাবে।’  নিঃসন্দেহে বলা যায় এ মনোভাব সময়োপযোগী ছিল। এ কারণে দারুল উলুম দেওবন্দের সিলেবাসে ধর্মীয় বিষয়াবলির প্রাধান্য ছিল। একটি  ইসলামি আধুনিক রাষ্ট্র বা প্রচলিত সেক্যুলার রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য যেসব জ্ঞান-বিজ্ঞানে পারদর্শী ক্যাডার, সচিব, আমলা বা কর্মকর্তার প্রয়োজন হয় সেসব জ্ঞান-বিজ্ঞান পাঠদানের ব্যবস্থা এখানে ছিল না। কেননা দারুল উলুমের গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে সরকারি কোনো চাকরি গ্রহণের মানসিকতা ছিল না। তাদের উদ্দেশ্য ছিল দীনি ইলমের সংরক্ষণ ও সম্প্রসারণ। এ উদ্দেশ্য পূরণে এর সফলতা অনস্বীকার্য। এ শিক্ষা ব্যবস্থা একসময় এ উপমহাদেশে নীরব অথচ প্রচণ্ড বিপ্লব সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছিল।deobond

এ শিক্ষাক্রম উত্তীর্ণ হয়ে এমন অসাধারণ ব্যক্তিত্ব সৃষ্টি হয়েছিলেন যারা শুধু এ উপমহাদেশকে নয় বরং প্রাচ্য ও প্রতীচ্যকে বিস্মিত ও হতবাক করেছিলেন। তারা শুধু আক্ষরিক জ্ঞানেই সমৃদ্ধ ছিলেন না বরং থিউরিক্যাল জ্ঞানের সফল বাস্তবায়নে ছিলেন অনুপম দৃষ্টান্ত । তারা ছিলেন এখলাস , নিষ্ঠা , পরোপকার ও আদর্শিক গুণাবিলীর মূর্ত প্রতীক। আবার তীক্ষ্ন ও সুগভীর এলেমের অধিকারী। দারুল উলুম মূলত যে কারিকুলাম অনুসরণ করেছিল তাকে দরসে নেজামী বা নেজামী শিক্ষা ব্যবস্থা বলা হয়। মোল্লা নেজামুদ্দীন শহীদ সেহালভী সমকালিন চাহিদানুসারে যে পূর্ণাঙ্গ সিলেবাস ও পাঠ্যক্রম প্রণয়ন করেন সেটাই দরসে নেজামী বলে পরিচিত এবং উপমহাদেশে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছিল।

মূল : আল্লামা তকি উসমানি

ভাষান্তর : কাজী মোহাম্মদ হানিফ

শাইখুল হাদিস, জামিয়া আরাবিয়া মারকাজুল উলুম, কাঁচপুর, নারায়ণগঞ্জ

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

কওমি মাদরাসা কল্যাণ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ

খতিব তাজুল ইসলাম ট্রাস্টের প্রয়োজনীয়তাঃ কওমি অংগন একটি স্বীকৃত ও তৃণমূল প্লাটফর্ম। দেশ ও জাতির ...