শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ বিকাল ৪:১৯
Home / খোলা জানালা / প্যারিসে নির্মম হত্যাযজ্ঞ প্রসঙ্গ

প্যারিসে নির্মম হত্যাযজ্ঞ প্রসঙ্গ

Ehsan Bin _Komashisha

এহসান বিন মুজাহির ::
নিরপরাধ মানুষ হত্যা ইসলামে মহাপাপ। মানবতা ও নৈতিকতার কোনো স্তরেই নিরপরাধ মানুষের প্রাণহানি ও অহেতুক রক্তপাতকে সমর্থন করা হয় না। হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য, প্রতিশোধ গ্রহণের অসৎ উদ্দেশ্য সাধনের জন্য যারা নিরপরাধ মানুষ হত্যা করে তারা মানবতাবর্জিত ও সভ্যতার শত্রু।

আজ প্যারিসে আকস্মিক হত্যাযজ্ঞের নির্মমতার কথা চিন্তা করলেই গা শিউরে উঠে! এমন উগ্র, বিকৃতমস্তিস্ক খুনীদের সঙ্গে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই। এরকম সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ইসলাম ধর্মের সাথে সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক! সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ অতীতেও করেছি, এখনও করছি, ভবিষ্যতেও করবো। তবে প্যারিসে নির্মম হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদ করার জন্য জুকারবর্গের আহ্বানে সাড়া দেবো না! প্রোফাইল পিক পাল্টাবো না! শোক পালন করতে গিয়ে প্রোফাইলের রং পরিবর্তন করতে হবে এ কেমন কথা? বহু আলেমসহ সচেতন অনেক বন্ধুরাও রঙ পরিবর্তনে ব্যস্ত! অথচ কিছুদিন আগেও মায়ানমারের মুসলমানদের উপর নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছিলো তখন জুকারবার্গ মুসলমানদের দুঃখে ব্যথিত হয়ে শোক পালনের জন্য পিক পরিবর্তনের আহবান করে নি! আজ এমন আহ্বান মতলবটা কিসের?

এছাড়া ফিলিস্তিন, ইরাক, মিশর, কাশ্মীর আফগানের প্রতিটি মুহূর্তই মজলুম মানুষের রক্তে রক্তাক্ত হয় তখন আমার যেমন কষ্ট হয়, আজও আমার তেমনই কষ্ট! ফ্রান্সে একদিনে মাত্র শতাধিক নিহতের ঘটনায় আমি শোক মোহ্য হয়ে প্রোফাইল পিক পাল্টিয়ে শোক পালনে আমার অসহমত। বহু আলেম, বন্ধুরা কিপ পরিবর্তন করেছেন বিধায় যে আমি করতে হবে এটা আমার কেমন কথা! তারা করেছেন বলেই আমি করবো এমন নয়! ফ্রেন্ডলিস্টের সবাই প্রোফাইল পিক চেঞ্জ করলেও আমি করবো না এটাই আমার আজকের প্রমিস! আপনি করেছেন আপনাকে কিছু বলারও আমার আগ্রহ নেই!

IMG_46282577462873সন্ত্রাসী ঘটনা প্রতিদিনই হচ্ছে! রক্তপাত-খুন হচ্ছে! ফিলিস্তিন, কাশ্মির, মায়ানমারসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে মুসলিম ভাইবোন সন্ত্রাসের শিকার হচ্ছে। তাদের জন্য তো কেউ মায়াকান্না করে না! তবে আজ প্যারিস হত্যার সমর্থনেও আমি নই। আরেকটু ক্লিয়ার করেই বলছি প্যারিসে আকস্মিক হত্যাযজ্ঞে নিহত মানুষগুলোর প্রতি আমার শোক- সমবেদনা আছে ঠিক ততটাই যতটা আমার ফিলিস্তিনি, আলজেরিয়ান, সিরিয়ান আফগানী ভাইদের প্রতি সহমর্মিতা ছিল। শুধু প্যারিস নয়, বরং আফগানিস্তান, ইরাক,সিরিয়া ,মিয়ানমার, লেবানন, ভারতের গুজরাট, বসনিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ সব রাষ্্েরটর নির্য়াতিত-নিপীড়িত নারী-শিশুদের উপর যে বা যারাই সন্ত্রাসি হামলা করেছে প্রত্যেকটি হামলারই নিন্দা জানাই! এবিষয়টি সবার জানা থাকা দরকার,পশ্চিমারাই তৈরী করা মার্ক জুকারবার্গ। ওরা ওদের পক্ষেই সোশ্যাল মিডিয়ার কাজ করছে। আমাদের শুভ বুদ্ধি উদয় হোক। পরিশেষে ইসলামে নিরপরাধ মানুষ হত্যা সর্ম্পকে কী বলে এনিয়ে কিছু আলোকপাত করছি। ইসলাম নিরপরাধ মানুষ হত্যা করাকে শিরকের পর বড় অপরাধ হিসেবে সাব্যস্ত করেছে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘কবিরা গোনাহসমূহের মধ্যে সবচেয়ে বড় গোনাহ হলো আল্লাহর সঙ্গে কাউকে অংশীদার সাব্যস্ত করা, নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করা, পিতা-মাতার অবাধ্য হওয়া এবং মিথ্যা কথা বলা।’ (বুখারি : ৬৮৭১)

হাদিসে এরশাদ হয়েছে ‘দুনিয়া ধ্বংস করার চেয়েও আল্লাহর কাছে ঘৃণ্যতর কাজ হলো মানুষ হত্যা করা।’ (তিরমিজি শরিফ)

অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা কেবল বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনাই নয়; ইসলামের দৃষ্টিতে সেটা পুরো মানবজাতির বিরুদ্ধে ধ্বংসাত্মক কাজ। পবিত্র কোরআনের ভাষায়, ‘নরহত্যা বা পৃথিবীতে ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি ছাড়া কেউ কাউকে হত্যা করলে সে দুনিয়ার সমগ্র মানবজাতিকে হত্যা করল আর কেউ কারো প্রাণ রক্ষা করলে সে যেন পৃথিবীর সমগ্র মানবগোষ্ঠীকে প্রাণে রক্ষা করল।’ (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৩২

হদিসে শরিফে এসেছে, ‘কিয়ামতের দিন মানুষের মধ্যে সর্বপ্রথম যে মোকদ্দমার ফায়সালা হবে তা হলো, রক্তপাত বা হত্যা সম্পর্কিত।’ (বুখারি : ৬৩৫৭)

লেখক: সাংবাদিক, কলামিস্ট, তরুণ আলেম

About Abul Kalam Azad

এটাও পড়তে পারেন

কওমি মাদরাসা কল্যাণ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ

খতিব তাজুল ইসলাম ট্রাস্টের প্রয়োজনীয়তাঃ কওমি অংগন একটি স্বীকৃত ও তৃণমূল প্লাটফর্ম। দেশ ও জাতির ...