বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সকাল ৬:০১
Home / অনুসন্ধান / মুসলিম উম্মাহর তীর্থস্থান পবিত্র বাইতুল্লাহ’র ইতিবৃত্ত!

মুসলিম উম্মাহর তীর্থস্থান পবিত্র বাইতুল্লাহ’র ইতিবৃত্ত!

মুহাম্মদ নাজমুল ইসলাম :

হারাম শরীফের বাইরের একাংশ

কুরআন হাদীসের আলোকে জানা যায় যে, মহান আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে ফেরেশতাগণ কর্তৃক পবিত্র কাবা ঘর নির্মাণের মাধ্যমে পৃথিবীর সূচনা হয়েছিল। সেটি আরবের মক্কা মুকাররামায় অবস্থিত পৃথিবীর সবচেয়ে পবিত্র ও সর্বশ্রেষ্ঠ মসজিদ — মসজিদুল হারামে অবস্থিত। কাবাঘরকে মুসলিম উম্মাহর কেবলা ও তীর্থস্থান হিসেবে মসজিদুল হারামের ভিতরে নির্মাণ করা হয়েছে। আল্লাহর এই ঘর সমস্ত পৃথিবীর কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং সারা বিশ্বের ভারসাম্য রক্ষাকারী এটি। পবিত্র কুরআনে কাবা ঘরকে বিশ্বের সবচেয়ে পবিত্র ও মূল্যবান স্থান হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। সৌদি বাদশাহ আবদুল্লাহ বিন আজিজ কর্তৃক সম্প্রসারণের পর ২০১১ সালের হিসাব অনুযায়ী এই কাবা ঘরকে ঘিরে নির্মিত মসজিদুল হারামের আয়তন ৪ লক্ষ বর্গ মিটার বা ৪৩ লক্ষ বর্গ ফুট। স্বাভাবিক ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী এতে একসাথে ৯ লক্ষ মুসুল্লী নামাজ আদায় করতে পারে। তবে হজ্ব বা রমজানের মওসুমে অতিরিক্ত আরও ৪০ লক্ষ লোকের স্থান সংকুলান হয় মসজিদুল হারামে। এই মসজিদুল হারামে এক রাকাত নামাজ পড়ার সওয়াব অন্য যে কোন জায়গায় এক লক্ষ রাকাত নামাজ পড়ার সওয়াবের সমান। এর উচ্চতা ৮৯ মিটার বা ২৯২ ফুট। এতে মিনার আছে ৯টি। উল্লেখযোগ্য গেট বা প্রবেশদ্বারগুলো হচ্ছে —
(১) বাদশা আব্দুল আজিজ গেট (২) বাদশাহ ফাহাদ গেট (৩) আল ফাতাহ গেট (৪) ওমরাহ গেট (৫) আজইয়াদ গেট (৬) হজরত বেলাল (রাঃ) গেট (৭) হুনাইন গেট (৮) হজরত ইসমাইল (রাঃ) গেট (৯) সাফা গেট (১০) বনী হাশে গেট (১১) হজরত আলী (রাঃ) গেট (১২) হজরত আব্বাস (রাঃ) গেট (১৩) নবী (সাঃ) গেট (১৪) আস সালাম গেট (১৫) শায়রা গেট (১৬) আল হুজুন গেট (১৭) উমলাত গেট (১৮) আল মুদ্দাআ গেট (১৯) আল মারওয়া গেট (২০) আল মুহসাব গেট (২১) আল আরাফাহ গেট (২২) মীনা গেট (২৩) হজরত ওমর (রাঃ) গেট (২৪) আর নাদওয়া গেট (২৫) আল সামিয়া গেট (২৬) আল কুদস গেট (২৭) আল মদিনা গেট (২৮) আল হুদায়বিয়া গেট। এরমধ্যে প্রথম চারটি গেটকে প্রধান গেট হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
03মসজিদুল হারামের কতিপয় অনন্য বৈশিষ্ট্যঃ
পবিত্র কাবা ঘরকে ঘিরে তৈরী মসজিদুল হারামের কতিপয় বিভাগ রয়েছে যেগুলো বিশেষ বৈশিষ্টমণ্ডিত। এগুলো হচ্ছেঃ-
১. পবিত্র কাবা শরীফ
২. হাজরে ইসমাইল
৩. যমযম কূপ
৪. মাকামে ইব্রাহীম
৫. সাফা-মারওয়া
৬. মাতাফ ও মাসওয়া ( তাওয়াফ ও সায়ীর স্থানসমূহ)
৭. হজরে আসওয়াদ
৮. মীযাবে রহমত
৯. মূলতাযীম (দোয়া কবুলের স্থান)
পবিত্র কাবা শরীফঃ-
নির্মাণ ইতিহাস –
আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে মানব সৃষ্টিরও পূর্বে কাবা ঘর সর্বপ্রথম তৈরী করেন ফেরেশতাগণ। এরপর আদি মানব হজরত আদম আ. এটি পূণঃনির্মাণ করেন। হজরত নূহ আ. এর সময়ে মহাপ্লাবনে কাবা ঘর প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছিল। তখন আল্লাহ তায়ালা ওহীর মাধ্যমে হজরত ইব্রাহীম আ. কে কাবার স্থান দেখিয়ে দেন এবং পুণঃনির্মাণের নির্দেশ দেন। নির্দেশমতো হজরত ইব্রাহিম আ. স্বীয় পুত্র হজরত ইসমাইল আ. কে সাথে নিয়ে কাবা ঘর পুণঃনির্মাণ করেন। এরপর হজরত জিবরাইল আ. জান্নাত থেকে হজরে আসওয়াদ পাথর নিয়ে এসে এটিকে কাবা ঘরে স্থাপনের নির্দেশ দেন। জান্নাতের এই পবিত্র পাথরটি তখন বরফ খন্ড বা দুধের মতো ধবধবে সাদা ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে মানুষের পাপের ষ্পর্শ নিতে নিতে এটি কালো রং ধারণ করেছে।
যাই হোক, হজরত ইব্রাহিম আ. কর্তৃক পুণঃনির্মাণের তিরিশ বছর পর জনৈক মহিলা কর্তৃক কাবা ঘরে সুগন্ধি দানকালে আগর বাতির ধোঁয়া থেকে অগ্নিকান্ডে কাবা ঘরের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। তখন কুরাইশরা কাবা ঘরের সংস্কার সাধনের উদ্যোগ গ্রহণ করে এবং হজরত ইব্রাহিম আ. কর্তৃক স্থাপিত ভিত্তির কিছুটা পরিবর্তন সাধন করে। হজরত ইব্রাহিম আ. কর্তৃক নির্মিত কাবা ঘরের দরজা ছিল দুটি। একটি কাবা ঘরে প্রবেশের জন্য আর অন্যটি পশ্চাৎমুখী হয়ে কাবা ঘর থেকে বের হবার জন্য। কিন্তু কুরাইশরা সংস্কারের সময় কাবা ঘরের শুধু পূর্ব দিকের দরজাটি খোলা রাখে। তাছাড়া ঐ সময় কাবা ঘরের দরজা অনেক উঁচুতে তৈরী করা হয় যাতে যে কেউ যখন ইচ্ছে বিনা অনুমতিতে কাবা ঘরে প্রবেশ করতে না পারে।
পরবর্তীতে মক্কা বিজয়ের পর মহানবী হজরত মুহাম্মদ সা. কাবা ঘর থেকে সমস্ত মূর্তি অপসারণ করেন এবং এটাকে ধূয়ে-মুছে পরিস্কার করে পবিত্র গিলাফ দিয়ে ঢেকে দেন। এরপর জিয়ারতকারীদের সংখ্যা অত্যধিক বৃদ্ধির কারণে দ্বিতীয় খোলাফায়ে রাশেদীন হজরত উমর ইবনুল খাত্তাব রা. মসজিদুল হারামের সংস্কার ও সম্প্রসারণ করেন। সেজন্যে তিনি মসজিদ সংলগ্ন জমি ও ব্যক্তিগত বাড়িঘর উপযুক্ত মূল্যে কিনে নিয়ে মসজিদুল হারামের আয়তন বৃদ্ধি করেন। ফলে মাতাফ ও তাওয়াফের স্থান সম্প্রসারিত হয়। এর আগে মাকামে ইব্রাহিম কাবা ঘরের দেয়াল ঘেঁষে স্থাপিত ছিল। তিনি সেটাকেও বর্তমান স্থানে স্থানান্তর করেন। এ কারণে কাবা ঘরের সর্ব প্রথম সংস্কার সাধনকারী হিসেবে হজরত উমর রা. এর নাম ইতিহাসে স্মরণ করা হয়। যদিও তৃতীয় খোলাফায়ে রাশেদীনের যুগে ২৬ হিজরীতে হজরত ওসমান রা. মসজিদুল হারামের দ্বিতীয় দফা সংস্কার ও সম্প্রসারণ করেন। তিনিই প্রথম মসজিদুল হারামের বারান্দা নির্মাণ করেন।
যাই হোক, ইতিহাসে সর্ব প্রথম নির্মাণ থেকে সর্বশেষ সময় পর্যন্ত মোট বার বার কাবা ঘরের সংস্কার ও স¤প্রসারণ কাজের উল্লেখ আছে। ক্রমানুসারে এগুলো নিম্নরূপ-
প্রথমবার — পৃথিবীতে মানব সৃষ্টির পর ফেরেশতাগণ কর্তৃক প্রথম কাবা ঘর নির্মাণ করা হয়।
দ্বিতীয়বার –হজরত আদম আ. কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
তৃতীয়বার –হজরত শীষ আ. কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
চতুর্থবার –হজরত ইব্রাহিম আ. কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
পঞ্চমবার –আমালিকা সম্প্রদায় কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
ষষ্ঠবার –জুরহাম সম্প্রদায় কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
সপ্তমবার –কুসাই বিন কিলাব কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
অষ্টমবার –মোযার সম্প্রদায় কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
নবমবার –কুরাইশগণ কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয় মহানবী হজরত মুহাম্মদ সা. এর নবুওয়াত প্রাপ্তির পাঁচ বছর আগে। তিনি এর নির্মাণ কাজে অংশ নিয়েছিলেন এবং হজরে আসওয়াদকে বর্তমান স্থানে স্থাপন করেছিলেন।
দশমবার –৬৪ হিজরীতে হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে যুবায়ের রা. মহানবী হজরত মুহাম্মদ সা. এর অন্তিম ইচ্ছে অনুযায়ী পুণঃনির্মাণ করেন।
এগারতমবারঃ ৭৪ হিজরীতে হাজ্জাজ ইবনে ইউসুফ কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়।
বারতমবারঃ ১০৪০ হিজরীতে ওসমানিয়া খলিফা চতুর্থ মুরাদ কর্তৃক পুণঃনির্মাণ করা হয়। এটাই আজ পর্যন্ত কাবা ঘরের সর্বশেষ সংস্কার কাজ। এরপর ছোটখাট সংস্কার ব্যতীত কেউ কাবা ঘরে হাত দেয়নি।
02নামকরণ:
ইতিহাস থেকে জানা যায় যে, আরবী অক্ষর কাফ, আইন ও বা – এই তিনটি অক্ষর নিয়ে গঠিত হয়েছে কাব বা মুকাআব শব্দ, যার অর্থ চার কোণ বিশিষ্ট। যেহেতু কাবাগৃহ চার কোণ বিশিষ্ট সেহেতু এর নামকরণ এখান এভাবেই এসেছে। অন্য আর একটি ব্যাখ্যা অনুযায়ীআরবীতে সুউচ্চ গৃহকে কাবা বলা হয়। কাবাঘর উঁচু বলে এর এই নামকরণ করা হয়েছে। পবিত্র কুরআনের সূরা আল মায়েদাহ এর দুই জায়গায় এই পবিত্র গৃহকে কাবা নামে সম্বোধন করেছেন। পবিত্র এই গৃহের আরও চারটি নাম রয়েছে। এগুলো হচ্ছে ঃ (১) আল বাইত (২) বাইতুল আতীক (৩) মসজিদুল হারাম ও (৪) বাইতুল মুহাররাম।
পবিত্র কাবা ঘরের আয়তন:
কাবা ঘরের উচ্চতা ১৫ মিটার। পূর্ব-পশ্চিমে এর দৈর্ঘ ১২ মিটার এবং উত্তর-দক্ষিণে ১০ মিটার। ভিতরে প্রবেশ করার জন্য একটিমাত্র দরজা রয়েছে যা বছরে তিনবার খোলা হয় অভ্যন্তরভাগ পরিস্কার করার জন্য।
old-kaaba-doorকাবা শরীফের দরজা:
ওসমানিয়া খেলাফতের সময় সর্বপ্রথম রৌপ্য নির্মিত কারুকার্যময় দরজা লাগানো হয় কাবা ঘরে। এর আগে মূল্যবান কাঠ দ্বারা নির্মিত একটি দরজা ছিল কাবা ঘরে। রুপোর উপর বিভিন্ন নকশা ও পবিত্র কুরআনের আয়াত খোদাই করা হয ঐ দরজায় এবং গিলাফের সাথে সামঞ্জস্য রেখে দরজার উপর পর্দা ঝুলানো হয়। প্রতি বছর গিলাফ পরিবর্তনের সময় এটাও পরিবর্তন করা হয়।
বর্তমানে পবিত্র কাবা ঘরের দরজাটি আছে সেটির উচ্চতা ৩.০৩ মিটার ও প্রস্থ ১.৬৮ মিটার। দরজাটি মাতাফ বা মেঝ থেকে ২.৫ মিটার উচ্চতায় স্থাপিত। ২৮০ কেজি খাটি সোনা দ্বারা দরজাটি তৈরী করেন প্রয়াত সৌদি বাদশা খালিদ বিন আব্দুল আজিজ। দরজাটি তৈরী করতে মোট ব্যয় হয়েছে ১৩.৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
নবী করিম সা. এর ওসিয়ত অনুযায়ী তার শাসনামল থেকে আজ পর্যন্ত বনি শায়রা গোত্রের নিকট কাবা ঘরের দরজার চাবি সংরক্ষিত আছে। বংশ পরম্পরায় তারা আজও এর রক্ষক। কারণ, নবীজী স্বয়ং তাদেরকে এই সম্মানে ভূষিত করে গেছেন।
কাবা ঘরের অভ্যন্তরভাগ:
কাবা ঘরের অভ্যন্তরভাগের বিশেষ বিশেষ দিকগুলো হচ্ছে –
—সব সময় আরবীয় সুগগ্ধি উদ ও মেশক আম্বড়ের মন মাতানো সৌরভে ভরপুর থাকে। এজন্য বছরে কয়েক মিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হয়।
—মেঝেটা মূল্যবান মার্বেল টাইলস দ্বারা তৈরী। চারপাশের কর্ণারগুলো কালো মার্বেল পাথর দ্বারা মোড়ানো। ভিতরের চারপাশের দেয়ালগুলো মেঝ থেকে উপরে চার মিটার পর্যন্ত কারুকার্যময় মার্বেল টাইলস দ্বারা মোড়ানো। তার উপর থেকে ছাদ পর্যন্ত বাকী পাঁচ মিটার দেয়াল কাবার প্রাচীন গিলাফ দ্বারা মোড়ানো। এই গিলাফটিতে সবুজ জমিনের উপর রুপোর ক্যালিওগ্রাফী আঁকা।
— মেঝের সাদা মার্বেলের মাঝে একটি গাঢ় সবুজ রং এর টাইলস দ্বারা মহানবী সা. এর নামাজ ও সেজদার স্থান চিহ্নিত করে রাখা আছে।
—একই সবুজ টাইলস দ্বারা দরজার পাশে মূলতাযীমেও একটি স্থান নির্দিষ্ট করা আছে। নবীজী সা. এখানে ডান গাল ও পেট ঠেকিয়ে দীর্ঘক্ষণ ধরে দোয়া করতেন। প্রত্যক্ষদর্শী সাহাবায়ে রোমের মতে, আল্লাহ তায়ালার কাছে চাওয়ার আকুতি ও পাওয়ার আনন্দে নবীজী সা. সেদিন এত বেশী কেঁদেছিলেন যে, উনার দাঁড়ি মোবারক, বুক ও পেট ভিজে গিয়েছিল। এই ঘটনার পর থেকে হজরে আসওয়াদ ও দরজার মধ্যবর্তী স্থানটি মূলতাযীম বা দোয়া কবুলের স্থান হিসেবে স্বীকৃত।
–কাবা ঘরের অভ্যন্তরভাগের ঠিক মাঝখানে প্রতিটি ৯ মিটার লম্বা তিনটি কাঠের খুঁটি রয়েছে। প্রতিটি খুঁটি স্বর্ণের কারুকাজখচিত বেল্ট দিয়ে মোড়ানো।
— কাবা ঘরের ছাদে ঝুলানো আছে ওসমানিয়া খেলাফত আমলের ৬টি ঝাড়বাতি। এগুলো পিতল, রৌপ্য ও রঙিন কাঁচ দ্বারা তৈরী। প্রায় একই রকম ঝাড়বাতি দেখতে পাওয়া যায় মসজিদে নববীর রিয়াজুল জান্নাতে।
—কাবা ঘরের ভিতরে পশ্চিম-দক্ষিণ কোণে একটি ছোট এক পাল্লার দরজা বিশিষ্ট কুঠুরী রয়েছে, যার ভিতর একটি সিঁড়ি রাখা আছে। কাবা ঘরের ছাদ পরিস্কার ও গিলাফ পরিবর্তনের সময় ছাদে উঠার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। এখানে উল্লেখ্য যে, প্রতি বছর হজ্বের মওসুমের পূর্বে পবিত্র কাবা ঘরের অভ্যন্তরভাগ যমযমের পানি ও সাবান দ্বারা ধৌত করা হয়। এতে উন্নত প্রযুক্তির হাইড্রোলিক ক্লিনিং মেশিন ব্যবহার করা হয়। ধোয়া মোছার পর মেঝে ও দেয়ালে অতি মূল্যবান সুগন্ধি মেশক আম্বর ও উদ ছিটানো হয়। সৌদি সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে মক্কার সম্মানিত গভর্ণরের নেতৃত্বে হারমাইনের ইমাম ও মুয়াযযিন এর অংশগ্রহণে এই পুরো কার্যক্রমটি পরিচালিত হয়। মাঝে মাঝে সেখানে উপস্থিত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানগণও এই মহতী কাজে অংশ গ্রহণের সুযোগ পান।
ক্স কাবা ঘরের ভিতরে আরও আছে কারুকার্যময় ১১টি টাইলস। এগুলো বিভিন্ন যুগে মসজিদুল হারামের স¤প্রসারণ ও পুণঃনির্মাণের জন্য সংগ্রহ করা হয়েছিল।
old-hajare-aswadহজরে আসওয়াদ
পবিত্র কাবা ঘরের বাইরের দিকের পূর্ব-দক্ষিণ কোণের দেয়ালে স্থাপিত রয়েছে জান্নাতের পবিত্র পাথর হজরে আসওয়াদ। এই কোণ থেকে তাওয়াফ শুরু করতে হয় এবং এখানেই শেষ করতে হয়। এই কোণকে রুকনে শারকী বলা হয়। শারকী শব্দের অর্থ হচ্ছে পূর্ব। এই কোণের ঠিক সামনেই রয়েছে যমযম কূপ। হজরে আসওয়াদ থেকে তাওয়াফ শুরু করে প্রথম যে কোণটি অতিক্রম করতে হয় সেটাকে বলা হয় রুকনে ইরাকী। ভৌগলিকভাবে ইরাকের দিকে অবস্থিত বলে এটাকে রুকনে ইরাকী বলা হয়। তাওয়াফের ধারাবাহিকতায় রুকনে ইরাকীর পরই অতিক্রম করতে হয় রুকনে গারবী। এটাকে রুকনে শামীও বলা হয় ভৌগলিকভাবে শামী বা সিরিয়ার দিকে অবস্থিত বলে। কাবা ঘরের চতুর্থ কোণ হচ্ছে রুকনে ইয়ামানী, ভৌগলিকভাবে ইয়েমেনের দিকে অবস্থিত বলে। এটা দক্ষিণ-পূর্ব দিকে অবস্থিত বলে এটাকে দক্ষিণ কোণও বলা হয়। প্রতিবার তাওয়াফ শেষ নবী করিম সা. রুকনে ইয়ামানী ষ্পর্শ করতেন। তাই এটি তাওয়াফের অন্যতম একটি সুন্নত। কিন্তু আজকাল ভীড়ের কারণে সবার পক্ষে এটি ষ্পর্শ করা সম্ভব হয়না। তাই দূর থেকে ইশারায় একাজটি করা হয়।
হজরে আসওয়াদ ও মাকামে ইব্রাহীম সম্পর্কে নবীজী সা. বলেছেন, নিশ্চয়ই হজরে আসওয়াদ ও মাকামে ইব্রাহীম জান্নাতের দুটি অতি মূল্যবান ইয়াকুত পাথর। পৃথিবীতে প্রেরণের সময় মহান আল্লাহ তায়ালা এই পাথর দুটির ঔজ্জল্য ম্লান করে তারপর প্রেরণ করেছেন। তানাহলে এদের আলোতে সমস্ত পৃথিবী এমনভাবে আলোকিত হয়ে থাকত যে দিন-রাত্রির পার্থক্য বুঝা যেতনা।
অন্য এক হাদীছে বলা হয়েছে যে, পৃথিবীতে প্রেরণের সময় হজরে আসওয়াদ দুধের মত সাদা ছিল। কিন্তু মানুষের পাপের ষ্পর্শে সেটা কালো রং ধারণ করেছে।
খোলাফায়ে রাশেদীনের শেষ দিকে মক্কার প্রশাসক সাহাবী হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে যুবায়ের রা. সর্বপ্রথম হজরে আসওয়াদকে রুপোর ফ্রেম দিয়ে বাঁধাই করেন। এরপর প্রত্যেক যুগেই মুসলিম মুসলিম খলিফাগণ এই বাঁধাই এর সংস্কার ও পরিবর্তন করেছেন। সর্বশেষ ১৩৭৫ হিজরীতে সউদী বাদশা সউদ ইবনে আব্দুল আজিজ নতুন করে রূপোর ফ্রেমে হজরে আসওয়াদকে বাঁধাই করেন এবং ১৪২২ হিজরীতে বাদশাহ ফাহাদ ইবনে আব্দুল আজিজ মসজিদুল হারামের স¤প্রসারণকালে এই রূপোর ফ্রেমটিকে আরও উন্নত সংস্করণে রূপান্তর করেন।
maqam-e-ibrahimমাকামে ইব্রাহিম
মাকামে ইব্রাহিম হচ্ছে জান্নাতের অতি মূল্যবান ইয়াকুত পাথর। হজরত ইব্রাহিম আ. এটির উপর দাঁড়িয়ে কাবা ঘর নির্মাণ করেছেন। উনার পুত্র হজরত ইসমাইল আ. পাথর সংগ্রহ করে এনে এগিয়ে দিতেন। আর তিনি এই পাথরের উপর দাঁড়িয়ে কাবা ঘরের দেয়াল নির্মাণ করেছেন। এ সময় তার প্রয়োজন অনুযায়ী পাথরটি উঠানামা করত। তিনি পাথরটির উপর উঠে দাঁড়ালে সেটি নরম হয়ে যেত এবং তিনি যাতে শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে পারেন সেজন্য উনার পা পাথরের ভিতর অনেকটা দেবে থাকত। এর পবিত্র স্মৃতি হিসেবে হজরত ইব্রাহীম আ. এর পায়ের ছাপ সম্বলিত পাথরটি আজও কাবা চত্বরে সুরক্ষিত আছে।
কাবা ঘরের গিলাফ
পবিত্র কাবা শরীফের গিলাফ পাঁচটি খণ্ডে তৈরী করা হয়। চারদিকের চারটি খণ্ড এবং দরজার জন্য একটি। ২০ মিলিয়ন সৌদি রিয়াল বা ৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয়ে প্রতি বছর নতুন করে এই গিলাফ তৈরী করা হয়। প্রথমে খাঁটি রেশম থেকে সূতা তৈরী করে সেগুলোকে কালো রং করা হয়। অতঃপর সেই সূতো দিয়ে ১৪ মিটার চওড়া বহরের কাপড় বুনা হয়, যার উপরের এক তৃতীয়াংশে স্বর্ণের সূতো দিয়ে পবিত্র কুরআনের ক্যালিওগ্রাফী করা হয়। এই ক্যালিওগ্রাফীর দৈর্ঘ ৪৭ মিটার এবং প্রস্থ ৯৫ সেন্টিমিটার। অর্থাৎ পবিত্র কাবার চারপাশের বেষ্টনী ৪৭ মিটার। এই স্বর্ণালী সূতোর ক্যালিওগ্রাফী ১৬টি ভিন্ন ভিন্ন টুকরোয় তৈরী করে চারপাশের গিলাফে স্থাপন করা হয়।
উল্লেখ্য যে, শুধুমাত্র কাবা ঘরের গিলাফ তৈরীর জন্য মক্কা নগরীতে একটি অত্যাধুনিক ফ্যাক্টরী রয়েছে, যাকে আরবীতে ‘মাসনা কিস্ওয়াতুল কাবা’ বলা হয়। ২০০ জন সুদক্ষ কারিগর এখানে কাজ করে এক বছরে এই একটিমাত্র গিলাফ তৈরী করে। প্রতি বছর হজ্বেও মওসুমে নতুন এই গিলাফ দিয়ে কাবা ঘর আচ্ছাদিত করা হয়। অপসারিত পুরাতন গিলাফটি সৌদি কর্তৃপক্ষ টুকরো টুকরো করে মুসলিম বিশ্বের স্বনামধন্য ব্যক্তিত্ব রাষ্ট্রপ্রধানদের উপহার হিসেবে দিয়ে থাকেন। আমাদের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমেও এর একটি অংশ রক্ষিত আছে, যেটি সৌদি বাদশা ফাহাদ ইবনে আব্দুল আজিজ আল সউদ ভ্রাতৃপ্রতীম বাংলাদেশকে উপহার হিসেবে দিয়েছিলেন এবং বাংলাদেশের পক্ষে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান সেটি গ্রহণ করেছিলেন।
বাইতুল্লাহ শরীফ সম্পর্কে কুরআন-হাদীছ যা বলেঃ-
 এটি নিঃসন্দেহে পৃথিবীর সর্বপ্রথম ঘর ও সর্বশ্রেষ্ট উপাসনালয়, যা সারা জাহানের মানুষের জন্য হেদায়েত ও বরকতময়।
 পৃথিবীর প্রথম মানব হজরত আদম আ. দুনিয়ার বুকে প্রেরিত হয়ে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের একমাত্র নিদর্শনস্বরূপ এই কাবা ঘরকেই পেয়েছিলেন।
 হজরত আদম আ. ও বিবি হাওয়া রা. পৃথিবীতে আগমনের পর আল্লাহ তায়ালা তাদেরকে কাবা ঘর তাওয়াফের নির্দেশ দেন।
 হজরত আদম আ. হচ্ছেন সর্ব প্রথম মানব যিনি কাবা ঘর তাওয়াফ করেন।
 এখানে হজ্ব করা হলো আল্লাহ তায়ালার উপর মানুষের প্রাপ্য।
 যে ব্যক্তি এর ভিতর প্রবেশ করে সে নিরাপত্তা লাভ করে।
 পবিত্র কাবা ঘরকে সমস্ত পৃথিবীর মানুষের স্থিতিশীলতার মাধ্যম হিসেবে তৈরী করা হয়েছে। সূরা – আল মায়েদাহ, আয়াত-৯৭।
 যতদিন পর্যন্ত পৃথিবীর প্রতিটি দেশের মানুষ বাইতুল্লাহ শরীফের দিকে মুখ করে নামাজ আদায় করতে থাকবে ততদিন পর্যন্ত পৃথিবী প্রতিষ্ঠিত ও সংরক্ষিত থাকবে। কিন্তু যদি এমন হয় এক বছর ধরে একজন মানুষও কাবা ঘর তাওয়াফ করল না কিংবা বাইতুল্লাহ শরীফের দিকে মুখ করে নামাজ আদায় করলনা তাহলে পৃথিবীতে ব্যাপক আযাব নেমে আসবে। অন্য একটি হাদীছে আছে পবিত্র কাবা ঘরের সম্মান যেদিন বিলুপ্ত হয়ে যাবে সেদিন পৃথিবীকেও বিলুপ্ত করে দেয়া হবে।
আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সেই জাহেলিয়াতের যুগ থেকে বাইতুল্লাহ শরীফের সম্মান ও মাহাত্ম সাধারণ মানুষের মনে এমনভাবে স্থাপন করে দিয়েছেন যে, কেউ এই পবিত্র ঘরকে অসম্মান করার সাহস পায়না। সে সময় আরবদের মধ্যে রণউন্মাদনা ও গোত্রগত বিদ্বেষ চরমভাবে বিদ্যমান ছিল। কিন্তু মহান আল্লাহ তায়ালা তাদের মনে বাইতুল্লাহ শরীফ ও এর আনুষংগিক বস্তু সামগ্রীর প্রতি সম্মান ও মাহাত্ম এমন বদ্ধমূলভাবে স্থাপন করেছিলেন যে ঘোরতর শত্রু কিংবা কঠিনতম অপরাধীও যদি একবার হারাম শরীফে আশ্রয় নিতে পারত তবে তার অপরাধ মাফ হয়ে যেত। এমনকি হারাম শরীফের ভিতর পিতৃ হত্যাকারীকে হাতের কাছে পেয়েও তারা চক্ষু নত করে চলে যেত।
হজরত ইব্রাহিম আ. কাবা ঘর তৈরীর পর মহান আল্লাহ তায়ালার নিকট এই বলে দোয়া করেছিলেন যে, হে আল্লাহ, তুমি এই শহরটিকে একটি শান্তির ধাম বানিয়ে দাও যাতে এখানে বসবাস করা আতঙ্কজনক না হয়ে উঠে। হত্যা, লুন্ঠন, কাফেরদের অধিকার স্থাপন ও অন্যান্য বিপদ-আপদ থেকে এই শহরটিকে তুমি সুরক্ষিত ও নিরাপদ রেখো। এখানে জীন ধারণের প্রয়োজনীয় সামগ্রী যেন সহজলভ্য হয়।
হজরত ইব্রাহীম আ. এর এই দোয়া আল্লাহ তায়ালা কবুল করেছিলেন। ফলে মক্কা মুকাররমা এমনভাবে সুরক্ষিত ও নিরাপদ হয়েছে যে, আজ পর্যন্ত কোন শত্রু জাতি এই শহরের উপর অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। তাছাড়া এই শহরটি হত্যা, লুটতরাজ থেকেও নিরাপদ।

লেখক : শিক্ষার্থী, দারুল উলুম দেওবন্দ

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

কওমি মাদরাসা কল্যাণ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ

খতিব তাজুল ইসলাম ট্রাস্টের প্রয়োজনীয়তাঃ কওমি অংগন একটি স্বীকৃত ও তৃণমূল প্লাটফর্ম। দেশ ও জাতির ...