বুধবার, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ দুপুর ১:৪১
Home / দেশ-বিদেশ / আরাকান : সেই সালতানাত, এই গণকবর

আরাকান : সেই সালতানাত, এই গণকবর

মুসা আল হাফিজ

মিয়ানমারে আরাকান মুসলমানের কান্না শুনতে পাচ্ছেন? বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে তাদের বুকচাপড়ানোর শব্দ। রাখাইন বা মগদস্যু আর সেনাবর্বরতায় কবর রচিত হচ্ছে মানবাধিকারের, উৎপীড়নের আগুনে জ্বলছে গ্রামের পর গ্রাম। আরাকানের সবুজ নিঃসর্গে বইছে রক্তস্রোত। জনপদগুলোতে বেড়ে গেছে শকুনের সংখ্যা। পচাগলা দুর্গন্ধ তাদেরকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে লাশের দিকে।

নাফ নদিতে মানুষের লাশ, পথের পাশে মানুষের লাশ, ঝোপের আড়ালে মানুষের লাশ। কুকুর কামড়াচ্ছে মানুষের লাশ, শেয়াল টানছে মানুষের লাশ। লাশগুলো বিকৃত, ধড় বিচ্ছিন্ন দেহ থেকে। নাড়িভূড়ি ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে, মেরুদণ্ড কেটে নেয়া হয়েছে, চোখ উপড়ে ফেলা হয়েছে। আগুনে পোড়ানো লাশ। কয়লা হয়ে যাওয়া লাশ। এ লাশ নারীর। আহা, নারী! এ লাশ শিশুর। আহা, শিশু! এ লাশ প্রেমিক যুবকের, প্রেমময়ী যুবতির। ওরা ধর্ষণ করেছে এবং হত্যা করেছে। ওরা হাত – পা বেধেছে এবং ফেলে দিয়েছে সাগরে। ওরা গ্রাম ঘেরাও করেছে এবং আগুন জ্বালিয়ে শেষ করে দিয়েছে গোটা গ্রাম। মাটিতে শুধু রয়ে গেছে ভষ্ম,বাতাসে উৎকট দুর্গন্ধ।

যারা মরছে, তারা রোহিঙ্গা। কেউ নেই তাদের পাশে। তাদের জীবন ভাসছে মৃত্যুর তরঙ্গে, অনিশ্চয়তার নৌকায়। তাদের জীবন রোদন করছে দূর্যোগের ভেতর। কতোটা দূর্যোগে তারা? সমুদ্রে ভাসমান আশ্রয়হীন নৌকাগুলো দেখুন, ঘর ছেড়ে পলাতক ঠিকানাহীন মানুষগুলোর চেহারা দেখুন, সীমান্তের কাঁটাতারে মুখ ঘষতে থাকা নিষ্পাপ,শিশুদের বিপন্নতা দেখুন। ক্ষুধা- পিপাসায় কাতর নারী- শিশুদের বহর গুচ্ছ গুচ্ছ বিপন্নতার ছবি হয়ে মৃত্যু থেকে পালাতে ছুটছে। তাদের উদাস দৃষ্টি এবং ভাষাহীন চেহারা যেন বিদ্রুপ করছে বিশ্ববিবেকের প্রতি।

কোথায় মানবাধিকারের বড় বড় গলাবাজ? কোথায় মুসলিম ভ্রাতৃত্বের নামে গড়ে উঠা ওআইসি? কোথায় আরবের পেট্রোডলারওয়ালা শেখ- আমিরের দল? এমনকি সৌদি আরবের কণ্ঠস্বরও তো শুনা গেলো না। সে আটকে আছে ইয়ামান সংকটে। ইরান শিয়াবাদ ছাড়া আর কিছুই বুঝে না। তুরস্ক ব্যস্ত সিরিয়া নিয়ে।পাকিস্তান সন্ত্রস্ত ভারতের হুমকিতে।

জাতিসংঘ কী করছে? পূর্বতিমুরের স্পৃহা এখন গেলো কই? দক্ষিণ সুদানের আবেগ এখন কোথায়? বামিয়ানে এক মূর্তির জন্য যা করেছেন, বার্মায় মানবতার জন্য তা করছেন না কেন? আমেরিকা-ব্রিটেন বা ইউরোপিয় ইউনিয়ন তো মানবাধিকার ইস্যুতে খুবই সোচ্চার! মানবতার এই দুঃসময়ে তারা কই? রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে বাংলাদেশকে শুধু আশ্রয় প্রদানের চাপ দিয়ে সব দায়িত্ব তাদের শেষ?

অথচ কী ভয়াল গণহত্যা সেখানে চলমান! বাংলাদেশের টেকনাফ কিংবা শাহপরির দ্বীপে দাঁড়ালেই দেখা যাচ্ছে দূর্যোগ! দেখা যাচ্ছে দাউদাউ আগুনে পুড়তে থাকা রোহিঙ্গাপল্লী। দেখা যাচ্ছে মানুষকে জীবন্ত দগ্ধকরণ।বাতাসে শুনা যাচ্ছে তাদের চিৎকার,বার্মিজ সেনাদের গুলির শব্দ আর পলায়ণপর মানুষকে ধাওয়া করা মগদের উল্লাস।
রোহিঙ্গারা হারিয়ছে সব ধরণের অধিকার। তারা হয়ে আছে নিজদেশে পরবাসী। তারা বন্চিত নাগরিক অধিকার থেকে। ১৯৮২ সালে মিয়ানমারের সরকার নাগরিকত্ব আইন করে তাদের নাগরিক স্বীকৃতি দেয়নি। তিন ধরণের নাগরিকের মধ্যে রাখা হয়নি তাদের। তাদেরকে নিছক বসবাসকারী বলা হয়েছে।অথচ রোহিঙ্গারা এক হাজার বছর ধরে এখানকার অধিবাসী!

সেই অষ্টম শতক থেকে আরাকানে তাদের অধিবাস।তাদের নাম থেকই সেকালে আরাকানের নাম হয়েছিলো রোহিং। বাঙালী, পার্সিয়ান, তুর্কি, মোঘল, আরব, পাঠানরা সমুদ্রের পার্শ্ববর্তি এ অন্চলে বসতি স্থাপন করেন। আরাকান রাজ ইঙ্গিচন্দ্রের রাজত্বকালে (৭৮৮-৮১৩)কয়েকটি আরবীয় বাণিজ্যবহর রামব্রি দ্বীপের কাছে বিধ্বস্ত হয়। যাত্রীরা পার্শ্ববর্তি দ্বীপে আশ্রয় নেন। তাদের মধ্যে ছিলেন কিছু ডাক্তার, সৈনিক ও সংগীতজ্ঞ। প্রত্যেকেই জ্ঞান ও আচরণে উজ্জ্বল। স্থানীয়রা তাদের আচরণে মুগ্ধ হয়। রাজা তাদেরকে গ্রহণ করেন অতিথি হিসেবে। তাদেরকে সেখানে বসবাসের অনুরোধ জানান।

সেই থেকে শুরু। (তারপর কী, বলবো? বলতে ইচ্ছে করছে না। কারণ আমি আরেকটি স্পেনের ইতিহাস লেখার বেদনা বহন করতে পারছি না)

ধীরে ধীরে স্থানীয়রা গ্রহণ করেছে ইসলাম। ত্রয়োদশ শতকে এসে গোটা অঞ্চলটাই হয়ে ওঠেছে মুসলিম জনপদ। ইবনে বতুতা যখন আরাকানে এলেন, তখন সেখানে সমৃদ্ধি আর সম্প্রীতির সুবাতাস বইছে। তিনি সেখানে বহু সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবার ও এলাকার সাক্ষাৎ পান। মুসলিমদের নৈকট্যে বৌদ্ধরা ছিলো সুখি ও নিরাপদ। ফলে অারাকানের ম্রাইক-উ রাজ বংশের শাসনামলে মুসলমানদের হাতে আসে অনেক। ক্ষমতাভ চন্দ্র ও সূর্য বংশের রাজা অসুথুর পুত্র নরমিলখলা যখন রাজা, তখন প্রভাবশালী নরমিখলা ক্ষমতা হারালে গৌড়ের সুলতান জালালুদ্দীন মুহাম্মদ শাহ তার সাহায্যে এগিয়ে আসেন। নরমিখলাকে অতিথি করে গৌড়ে রাখেন ২৪বছর। ৫০হাজার সৈন্য দিয়ে দুই দফায় তাকে সাহায্য করেন। এই সৈন্যরা যুদ্ধ করে নরমিখলাকে পুণরায় ক্ষমতায় বসায়। এতে মুগ্ধ হয়ে রাজা নিজের বৌদ্ধ নাম পরিহার করে গ্রহণ করেন মুসলিম নাম- সোলাইমান শাহ।

এর পরে আরো অনেক আরাকান রাজা বৌদ্ধ হয়েও মুসলমানি নাম গ্রহণ করেছেন। এখানে শতাব্দির পর শতাব্দি মুসলমানরা সমাজ-রাষ্ট্র ও সংস্কৃতিতে অনস্বীকার্য প্রভাব রেখে আসছেন। বিচার ব্যবস্থায় বারাবরই ছিলো মুসলমানদের কর্তৃত্ব। প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী, প্রধানকাজী ইত্যাদি পদ মুসলমানদের জন্য ছিলো নিশ্চিত। ১৪৩০ সালে আরাকানে প্রতিষ্ঠিত হয় মুসলিম রাজ্য। ২০০ বছরেরও বেশি সময় সেটা স্থায়ী ছিলো। ১৬৩১ থেকে ১৬৩৫ পর্যন্ত স্থায়ী এক দুর্ভিক্ষ আরাকান কে লণ্ডভণ্ড করে দেয়। পরে অবসান হয় মুসলিম শাসনের।

১৬৬০ সালে আরাকান রাজা থান্দ থু ধম্মা নিজ রাজ্যে অাশ্রিত সুজাকে হত্যা করে। সে ধীর ধীরে অত্যাচারী হয়ে ওঠে। তার শাসনামলে মুসলমানদের উপর দুর্ভোগ বয়ে যায়। এতদসত্ত্বেও সতের শতকের আটের দশক পর্যন্ত রোহিঙ্গা রাজ্যে মুসলিম বৌদ্ধ মিলে মিশে শান্তি পরিবার হিসেবে স্বাধীনতা ভোগ করছিলো। এর উপর আঘাত আসে মিয়ানমারের বৌদ্ধ রাজা বোদাওফার পক্ষ থেকে। ১৭৮৫ সালে তিনি আক্রমন করে রাজ্যটি দখল করে নেন। তার ত্রিশ হাজার সৈন্যের বিশাল বাহিনী দেশব্যাপী ধ্বংসের উৎসবে মেতে উঠে। মসজিদসমূহ ধ্বংস করে। কাঁচা-পাকা ঘরসমূহ মাটির সাথে মিশিয়ে পুড়িয় হত্যা করা হয় অসংখ্য রোহিঙ্গাকে। বোদাওফা বাহিনীর আক্রমণে মারা যায় অধিকাংশ বয়স্ক রোহিঙ্গা। সাজানো জনপদগুলো বধ্যভূমি পরিণত হয়। ফসলের ক্ষেত, সুবিশাল বাগিচা, নজরকাড়া স্থাপনা, সুরম্য বাসভবন সমস্তই দুঃস্বপ্নের আগুনে ছাই হয়ে যায়। এই ধ্বংসযজ্ঞে যারা মারা গেলো তাদের প্রতি ঈর্ষা পোষণ করতো পরবর্তীতে জীবিত রোহিঙ্গারা। কারণ দুই লক্ষ জীবিত রোহিঙ্গাকে বৌদ্ধরা দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ করে ফেলে। তাদের জীবনকে করে তোলে অসহনীয়, অগ্নিময়। সর্বক্ষণ এই মানুষগুলো ছিলেন অমানবিকতায়। তাদের উপর দূরাবস্থার ঝড় বইছে।

এমতাবস্থায় ১৮২৫ সালে রোসাঙ্গ রাজ্যে হানা দিলো ব্রিটিশরা। রোহিঙ্গারা তখন বৃটিশদের বিরুদ্ধে লড়তে যাননি। ফলে বৃটিশরাও তাদের উত্যক্ত করেনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে তারা বৃটিশদের অনুগত হয়ে ভূমিকা পালন করে। অপরদিকে মগ বৌদ্ধরা স্বধর্মীয় জাপানিদের পক্ষ নেয়। যুদ্ধে জাপান হারলো। রাখাইন মগরা এ জন্যে দুঃখিত ছিলো। তারা সমস্ত দুঃখ ও আক্রোশ মেটাতে চাইলো রোহিঙ্গাদের উপর। ১৯৪২ সালে চালালো ভয়াবহ নৃশংস গণহত্যা। শিশু নারী বৃদ্ধ কেউই রেহাই পায়নি মগদের নির্মমতা থেকে। সুস্থ-অসুস্থ সবাইকে তারা হত্যা করলো নির্বিচারে। পঞ্চাশ হাজার রোহিঙ্গাকে মেরে ফেলা হলো। বিলুপ্ত হয়ে গেলো ৩০৭ টি রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রাম। জনপদের পর জনপদ পরিণত হলো পড়ো ভূমিতে। কালাদান নদীর পূর্ব তীরের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ট এলাকা সমূহে মুসলমানদের খোঁজ খবর নেয়ার মত জীবিত পুরুষ বিদ্যমান ছিলো না।

এমন পরিস্থিতিতে বৃটিশরাও তাদের প্রতি সুবিচার করলো না। তারা রোহিঙ্গাদের সাথে করলো চরম বিশ্বসঘাতকতা। তারা মিয়ানমারের ১৩৯টি জাতি গোষ্টির তালিকা তৈরি করে। সেখানে রোহিঙ্গাদের নামও রাখেনি। সেই থেকে শুরু হয় রোহিঙ্গাদের নিজদেশে পরবাসী হওয়ার দাস্তান। ১৯৪৮ সালে ব্রিটেন মিয়ানমার ছেড়ে চলে গেলে রোহিঙ্গাদের জন্য নেমে আসে কালোরাত। স্বাধীন বার্মায় রোহিঙ্গারা বসবাস করেন উদ্বাস্তুর মত। তাদের নিষিদ্ধ করা হয় সেনাবাহিনীতে। পুলিশেও তাদের পথ হয় রুদ্ধ। সরকারি চাকরির দরজাও বন্ধ করে দেয়া হয়।

লেখক : কবি ও গবেষক

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

কওমি মাদরাসা কল্যাণ ট্রাস্ট, বাংলাদেশ

খতিব তাজুল ইসলাম ট্রাস্টের প্রয়োজনীয়তাঃ কওমি অংগন একটি স্বীকৃত ও তৃণমূল প্লাটফর্ম। দেশ ও জাতির ...