বুধবার, ১৬ই জুন, ২০২১ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ১০:৩৭
Home / জীবন জিজ্ঞাসা / তাবিজ-কবজ ব্যবহার করা শিরক?

তাবিজ-কবজ ব্যবহার করা শিরক?

মুহাম্মদ মুহিউদ্দীন কাসেমী

তাবিজ-কবজ ব্যবহার করাকে অনেকে শিরক বলতেছে। কোনোপ্রকার বাছ-বিচার না করে ব তাবিজকে শিরক ও হারাম বলা অন্যায়।
সমস্ত ক্ষমতার মালিক আল্লাহ। রোগ দেওয়ারও মালিক তিনি, রোগের আরোগ্যও দেন তিনি। পৃথিবীর কোনো বস্তুই আল্লাহর হুকুম ছাড়া কিছু করতে পারে না।
হযরত উসামা ইবনে শরিক রা. বলেন, কিছু গ্রাম্যলোক রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে এসে জিজ্ঞেস করেন, হুজুর! আমরা কি চিকিৎসা করাব? তখন রাসুল সা. বলেন :

تَدَاوَوْا فَإِنَّ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ لَمْ يَضَعْ دَاءً إِلاَّ وَضَعَ لَهُ دَوَاءً غَيْرَ دَاءٍ وَاحِدٍ الْهَرَمُ গ্ধ.

অর্থ : চিকিৎসা করাও। কারণ, আল্লাহ তাআলা এমন কোনো রোগ সৃষ্টি করেননি যার কোনো ওষুধ দেননি। তবে বার্ধক্য (মৃত্যু) রোগের কোনো ওষুধ নেই। (সুনানে আবী দাউদ, হাদিস নং- ৩৮৫৭)
ওষুধের মাঝে নিজস্ব কোনো ক্ষমতা নেই। ওষুধের সবটুকুন ক্ষমতাই আল্লাহপ্রদত্ত। আল্লাহর হুকুমে ওষুধ কাজ করে। প্রত্যেক বস্তুর বেলায়ই একই কথা প্রযোজ্য।
রোগের চিকিৎসা করানো সকলের মতেই বৈধ। শুধু জায়েয নয়, সুন্নতও বটে। রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও সাহাবায়ে কেরামও চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন। সুতরাং তাবিজ-কবজকেও চিকিৎসার একটি মাধ্যম হিসেবে গ্রহণ করা যাবে। তাতে শিরকের কোনো গন্ধ নেই। ওষুধকে যদি কেউ মুসাব্বিব বা মূল প্রভাবক মনে করে তাহলেও শিরক হবে। তদ্রƒপ কেউ যদি তাবিজকে মূল প্রভাবক মনে করে, আল্লাহর ওপর ভরসা না করে, তখন তো তাবিজ ব্যবহার করাও শিরক হবে।
তাবিজ-কবজ ব্যবহারের ক্ষেত্রে আরেকটি মৌলিক বিষয় হল, কোনো কুফুরি কালাম বা নাজায়েয কিছু দ্বারা তাবিজ দেওয়া যাবে না; দিলে নাজায়েয হয়ে যাবে। যেমন কেউ কুরআনের আয়াত বা কোনো দোয়া দ্বারা তাবিজ দিল, এটা নিঃসন্দেহে জায়েয হবে। এক্ষেত্রে সে আল্লাহর কালামের আশ্রয় গ্রহণ করেছে। আল্লাহর কালামও আল্লাহর একটি সিফত। সে তো কোনো শিরক করেনি। অতএব এ ধরনের তাবিজ শিরকের অন্তর্ভুক্ত হবে না।
মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বার মধ্যে একটি স্বতন্ত্র অধ্যায় হল : مَنْ رخَّصَ فِي تعلِيقِ التَّعَاوِيذِ : তাবিজ ঝুলানোর ক্ষেত্রে অবকাশ।
এ অধ্যায়ের অধীনে তিনি সাহাবি ও তাবেয়িদের কর্ম ও বক্তব্য দ্বারা তাবিজ ব্যবহারের ওপর দলিল দিয়েছেন। যেমন :

كَانَ مُجَاهِدٌ يَكْتُبُ للنَّاسَ التَّعْوِيذَ فَيُعَلِّقُهُ عَلَيْهِمْ.

অর্থ : বিখ্যাত তাবেয়ি মুজাহিদ রহ. মানুষকে তাবিজ লিখে ঝুলিয়ে দিতেন। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদিস নং- ২৪০১১)

عَنْ عَطَاءٍ ، قَالَ : لاَ بَأْسَ أَنْ يُعَلَّقَ الْقُرْآنُ.

অর্থ : প্রখ্যাত তাবেয়ি আতা রহ. কুরআন দ্বারা তাবিজ ঝুলানো জায়েয মনে করতেন। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদিস নং- ২৪০১১)

عَنْ عَمْرِو بْنِ شُعَيْبٍ ، عَنْ أَبِيهِ ، عَنْ جَدِّهِ ، قَالَ : قَالَ رَسُولُ اللهِ صلى الله عليه وسلم : إِذَا فَزِعَ أَحَدُكُمْ فِي نَوْمِهِ فَلْيَقُلْ : أَعُوذُ بِكَلِمَاتِ اللهِ التَّامَّاتِ مِنْ غَضَبِهِ وَسُوءِ عِقَابِهِ ، وَمِنْ شَرِّ عِبَادِهِ ، وَمِنْ شَرِّ الشَّيَاطِينِ وَمَا يَحْضُرُونِ ، فَكَانَ عَبْدُ اللهِ يُعَلِّمُهَا وَلَدَهُ مَنْ أَدْرَكَ مِنْهُمْ ، وَمَنْ لَمْ يُدْرِكْ ، كَتَبَهَا وَعَلَّقَهَا عَلَيْهِ.

অর্থ : হযরত আমর ইবনে শোআইব স্বীয় পিতার সূত্রে তার দাদা থেকে বর্ণনা করেন, রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : তোমাদের কেউ ঘুমে ভয় পেলে এ দোয়া পড়বে :

أَعُوذُ بِكَلِمَاتِ اللهِ التَّامَّاتِ مِنْ غَضَبِهِ وَسُوءِ عِقَابِهِ ، وَمِنْ شَرِّ عِبَادِهِ ، وَمِنْ شَرِّ الشَّيَاطِينِ وَمَا يَحْضُرُونِ

অর্থ : আবদুল্লাহ ইবনে আমর রা. প্রাপ্তবয়স্ক সন্তানদের এ দোয়া শিখাতেন আর অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তানদের গলায় দোয়াটি তাবিজ বানিয়ে ঝুলিয়ে দিতেন। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদিস নং- ২৪০১১; সুনানে আবী দাউদ, হাদিস নং- ৩৮৯৫, কিতাবুত তিব, অধ্যায় : باب كَيْفَ الرُّقَى)

নিষেধাজ্ঞা সংক্রান্ত হাদিসের উত্তর
তবে দুয়েকটি হাদিসে তাবিজ ব্যবহার নিষিদ্ধের কথা পাওয়া যায়। এগুলোকে সামনে রেখেই অনেকে তাবিজ ব্যবহারকে শিরক বলেন। যেমন : مَنْ عَلَّقَ تَمِيمَةً فَقَدْ أَشْرَكَ ‘যে তাবিজ ঝুলাল, সে শিরক করল’।
তারা আসলে পুরো হাদিস উল্লেখ করেন না। পুরো হাদিস দেখলেই বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যায় যে, কার জন্যে তাবিজ ব্যবহার করা নিষেধ করা হয়েছে। পুরো হাদিসটি দেখুন :

عَنْ عُقْبَةَ بْنِ عَامِرٍ الْجُهَنِيِّ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَقْبَلَ إِلَيْهِ رَهْطٌ فَبَايَعَ تِسْعَةً وَأَمْسَكَ عَنْ وَاحِدٍ فَقَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ بَايَعْتَ تِسْعَةً وَتَرَكْتَ هَذَا قَالَ إِنَّ عَلَيْهِ تَمِيمَةً فَأَدْخَلَ يَدَهُ فَقَطَعَهَا فَبَايَعَهُ وَقَالَ مَنْ عَلَّقَ تَمِيمَةً فَقَدْ أَشْرَكَ

অর্থ : হযরত উকবা ইবনে আমের আল-জুহানি রা. বলেন : একবার রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে ইসলাম গ্রহণের জন্যে কাছে একটি দল আসল। তাদের নয়জনকে বায়আত করলেন; একজনকে করলেন না। তারা বলল, হুজুর! সবার বায়আত গ্রহণ করলেও তারটি কেন করেননি? রাসুল সা. বললেন, তার কাছে তাবিজ থাকায় তাকে বায়আত করিনি। কারণ, যে তাবিজ ঝুলাল সে শিরক করল। (মুসনাদে আহমদ, হাদিস নং- ১৭৪২২)
এবার বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে গেল। কারণ, যারা ইসলাম গ্রহণ করতে এসেছিল তারা তো মুশরিক ছিল। আর মুশরিকের গলায় কুরআনের তাবিজ থাকবে? ছিল কুফুরি কালামের তাবিজ। যে কারণে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রতিনিধিদলের সবাইকে বায়আত করলেও তাবিজওয়ালাকে করেননি। তাবিজ খোলার পর বায়আত করেছেন। কুরআন-হাদিস দ্বারা তাবিজ গ্রহণ করলে শিরক হওয়ার প্রমাণ কি এ হাদিস দ্বারা দেওয়া যায়? মোটেও দেওয়া যাবে না।
এসব হাদিসের ব্যাখ্যায় মুহাদ্দিসিন ও ফুকাহায়ে কেরামের অভিমতও লক্ষণীয় :
মাও. সিন্দি রহ. বলেন :

قال السندي المراد تمائم الجاهلية مثل الخرزات وأظفار السباع وعظامها وأما ما يكون بالقرآن والأسماء الإلهية فهو خارج عن هذا الحكم بل هو جائز
(আউনুল মাবুদ : খ. ১০, পৃ. ২৫০)

আল্লামা ইবনে আবিদীন শামী রহ. বলেন :

( قَوْلُهُ التَّمِيمَةُ الْمَكْرُوهَةُ ) أَقُولُ : الَّذِي رَأَيْته فِي الْمُجْتَبَى التَّمِيمَةُ الْمَكْرُوهَةُ مَا كَانَ بِغَيْرِ الْقُرْآنِ.

অর্থ : আমি মুজতাবা নামক কিতাবে দেখেছি, মাকরুহ তাবিজ হল যা কুরআন ব্যতীত অন্যকিছু দ্বারা হয়ে থাকে। (ফাতাওয়া শামী : খ. ৬, পৃ. ৩৬৪)

এবার কেউ যদি বলে, হাদিসে তাবিজ ব্যবহা করা শিরক বলা হয়েছে; ব্যস এখানে আর ব্যাখ্যার কী দরকার।
দারুণ বলেছেন। হাদিসের অন্তর্নিহিত মর্ম ও ব্যাখ্যা যদি গ্রহণ না-ই করেন তাহলে আপনাকে মাত্র একটি হাদিস দিচ্ছি; নেন আমল করেন। সহিহ বুখারিতে এসেছে, রাসুল সা. ইরশাদ করেন, নামাযি ব্যক্তির সামনে দিয়ে কেউ অতিক্রম করলে তাকে হত্যা করো।
ব্যস, এবার হত্যা শুরু করুন। কারণ, হাদিসের কোনো ব্যাখ্যা চলবে না।

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

সিলেটের পবিত্র মাটি আবারও কলংকিত হলো রায়হানের রক্তে!

পুলিশ ফাড়িতে যুবক হত্যা: সিলেটজোড়ে চলছে রহস্য! এলাকাবাসীর প্রতিবাদ!! সিলেট নগরীতে রায়হান নামক এক যুবকের ...