সোমবার, ১০ই আগস্ট, ২০২০ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সকাল ১১:৪৬
Home / খুৎবা / সংবাদ সম্মেলনে হেফাজত মহাসচিবের হুঁশিয়ারী : আগুন নিয়ে খেলা করবেন না, পুড়ে ছারখার হয়ে যাবেন

সংবাদ সম্মেলনে হেফাজত মহাসচিবের হুঁশিয়ারী : আগুন নিয়ে খেলা করবেন না, পুড়ে ছারখার হয়ে যাবেন

1458548600-423x300কমাশিসা ডেস্ক :: ২৮ বছর আগের পুরনো একটি রিট মামলাকে সচল করে বাংলাদেশের সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ‘ইসলাম’ থাকবে কি থাকবে না; এই বিষয়ে হাইকোর্টে শোনানি গ্রহণ এবং দেশের শিক্ষা-সংস্কৃতিসহ নানা পর্যায়ে ইসলাম বিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে আগামী ২৫ মার্চ শুক্রবার বাদ জুমা ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীসহ দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচী ঘোষণা করেছে হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ। আজ (২১ মার্চ) সোমবার বেলা ১১টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার এক জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী এই কর্মসূচী ঘোষণা করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলামের সিনিয়র নায়েবে আমীর আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী, হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমীর মাওলানা লোকমান হাকিম, যুগ্মমহাসচিব মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদি, হেফাজত আমীরের প্রেসসচিব মাওলানা মুনির আহমদ, মাওলানা ইসহাক মেহেরী, মাওলানা মোজাম্মেল হক, মাওলানা ইবরাহীম খলীল সিকদার, মাওলানা রফিকুল ইসলাম, মাওলানা ইউনুস, মাওলানা ইকবাল খলীল, মাওলানা জুনায়েদ জওহার, আনম আহমদুল্লাহ প্রমুখ।

সাংবাদিক সম্মেলনে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় মহাসচিব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিলের ষড়যন্ত্র দেশবাসী কখনোই মেনে নেবে না। ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থাকবে কি থাকবে না, এ নিয়ে কোনভাবেই আদালতে মামলা ও শোনানি চলতে পারে না। সরকারকেই এই মামলা বাতিলের জন্যে উদ্যোগি হওয়ার আহ্বান জানিয়ে হেফাজত মহাসচিব বলেন, জনগণের মনের ভাষা বুঝার চেষ্টা করুন। ইসলামের বিধি-বিধান ও মানুষের ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে আদালতকে দিয়ে রুল বা আদেশ জারির ষড়যন্ত্র বন্ধ করুন। তিনি হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে দেশবাসীর আক্বিদা-বিশ্বাসের বিরুদ্ধে যদি কোন রায় আসে, তাহলে দেশের সাড়ে চার লক্ষ মসজিদ থেকে কোটি কোটি মুসলমানের প্রতিবাদের দাবানল জ্বলে ওঠে ষড়যন্ত্রকারীদের চক্রান্তকে ছারখার করে দেবে। তিনি বলেন, যারা দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নয় এবং যারা চায় না এদেশের সকল ধর্মমতের মানুষ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মাধ্যমে সুখে-শান্তিতে সুন্দরভাবে বসবাস করুন, তারাই আদালতের কাঁধে বন্দুক রেখে রাষ্ট্রধর্ম বাতিল করে দেশে গোলযোগ তৈরী করতে চায়। এই ষড়যন্ত্রকারীরা দেশের শত্রু, দেশের গণমানুষেরও শত্রু, এরা দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী নয়।
আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আরো বলেন, বাংলাদেশে হাজার হাজার ফুল রয়েছে, এর মধ্যে শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল। হাজার হাজার পাখীর মধ্যে দোয়েল জাতীয় পাখী, হাজার হাজার মাছের মধ্যে ইলিশ জাতীয় মাছ, অসংখ্য ভাষার মধ্যে জাতীয় ভাষা বাংলা। তাহলে দেশের মোট নাগরিকের ৯২ ভাগ মানে ১৬ কোটি মুসলমানের একক ধর্ম ইসলাম জাতীয় ধর্ম হতে বাঁধা কোথায়? তিনি বলেন, নাস্তিক্যবাদিরা বর্তমান ধর্মনিরপেক্ষ সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে ঢুকে পড়েছে। তারা সরকারকে ভুল বুঝিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা, অর্থসম্পদ ও জনগণের ধর্মীয় আক্বিদা-বিশ্বাস লুটপাট ও ধ্বংস করার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। ইতিপূর্বে ৯২ ভাগ মুসলমানের এই দেশের সংবিধান থেকে মহান আল্লাহর উপর আস্থা ও বিশ্বাসের ধারা মুছে দিয়ে ধর্মনিরপেক্ষ নীতি সংযোজন করা হয়েছে, বিসমিল্লাহর ভুল অর্থ সংবিধানে লেখা হয়েছে, জাতীয় শিক্ষানীতি থেকে ইসলামী নীতি-আদর্শ ও চেতনাবোধকে বাদ দেওয়া হয়েছে। সংস্কৃতিসহ সর্বক্ষেত্রে এখন ইসলাম বিরোধীতা, মুসলমানদেরকে হেয় করা এবং ইসলামী চেতনাবোধ মুছে ফেলার জোর অপতৎপরতা চলছে। বাংলাদেশের অর্থসম্পদ নিয়ে লুটপাট চলছে। ঈমান-আক্বিদা ও ধর্মীয় আদর্শকেও লুটে নিয়ে নাস্তিক্যবাদ ও ভোগবাদিতা প্রতিষ্ঠা করার জোর ষড়যন্ত্র চালানো হচ্ছে। এটা কোনভাবেই আর চলতে দেওয়া যায় না, চলতে দেওয়া হবে না।
সাংবাদিক সম্মেলনে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দৃঢ়তার সাথে বলেন, আগামী শুক্রবার সারাদেশে ঈমান-আক্বিদাভিত্তিক অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলামের ব্যানারে বিক্ষোভ কর্মসূচী পালনের মাধ্যমে দেশের আদালতসহ সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে আমরা এই বার্তা পৌঁছাতে চাই যে, দয়া করে রাষ্ট্রধর্ম বাতিলের মামলাটি খারিজ করে ষড়যন্ত্রকারীদের চক্রান্ত নস্যাত করুন। রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল থাকাটা এদেশের মানুষের প্রাণের আকুতি, গভীর চাওয়া। এ নিয়ে অপ্রত্যাশিত কোন রায় আসলে জনসাধারণের মাঝে গভীর অসন্তোষ ও বিশৃঙ্খলা তৈরীর প্রবল আশংকা আছে। দেশের শান্তিশৃঙ্খলা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুণ্ন রাখার স্বার্থে এই মামলা খারিজ বা বাতিল করাটা জরুরী। তিনি এ পর্যায়ে সরকারের প্রতি জোর দাবী জানিয়ে বলেন, শাসকমহলকে জনগণের প্রত্যাশা ও হৃদয়ের ভাষা বুঝতে হবে। ষড়যন্ত্রকারীরা দিন দিন সরকারকে জনবিচ্ছিন্ন করে দিচ্ছে। তিনি সরকারের প্রতি এটর্নি জেনারেলের মাধ্যমে এই মামলা বাতিলে উদ্যোগি হওয়ারও আহ্বান জানান।
হেফাজত মহাসচিব আরো বলেন, বাংলাদেশে ৯২ ভাগ মুসলমান যেমন স্বাধীন ধর্মীয় ও নাগরিক অধিকার নিয়ে বসবাস করবে, তেমনি হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টানসহ সকল অমুসলিমও তাদের পূর্ণ ধর্মীয় ও নাগরিক অধিকার নিয়ে বসবাস করবেন। আমরা চাই মুসলমানদের পাশাপাশি অন্যান্য সকল ধর্মাবলম্বীও যেন এদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সাথে সুখে শান্তিতে বসবাস করে। যারা সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম মুছে দিতে চায়, তারা মূলতঃ এদেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাঁধাতে চায়। এরা দেশ ও জনগণের দুশমন। দেশ ও জাতির এই দুশমনদেরকে উৎখাত করার জন্যে আমরা আজ ঐক্যবদ্ধ। তিনি বলেন, বর্তমান সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রাখার পাশাপাশি হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টানসহ অন্যান্য সব ধর্মাবলম্বীর মর্যাদা ও অধিকারের কথাও স্পষ্টভাবে লেখা হয়েছে। সুতরাং সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম বাতিলের অর্থই হচ্ছে সাংবিধানিকভাবে নাস্তিক্যবাদ প্রতিষ্ঠা। এই প্রতিবাদে অমুসলিমদেরও শামিল হওয়া চাই। তিনি রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদেরকে হুঁশিয়ারী দিয়ে বলেন, আগুন নিয়ে খেলা করবেন না। পুড়ে ছারখার হয়ে যাবেন।

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

শবে বরাত মানে লাইলাতুন নিস্ফি মিন শা‘বান!

শবে বরাত সম্পর্কে কোনো সহিহ হাদিস নেই? Mohiuddin Kashemi সাহেবের ওয়াল থেকে: অজ্ঞ, নির্বোধ কিংবা ...