মঙ্গলবার, ১৮ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সন্ধ্যা ৬:৫৯
Home / অনুসন্ধান / ‘দেওবন্দের মূলনীতির ওপর ভিত্তি করেই স্বীকৃতি বাস্তবায়ন হচ্ছে’

‘দেওবন্দের মূলনীতির ওপর ভিত্তি করেই স্বীকৃতি বাস্তবায়ন হচ্ছে’

কমাশিসা ডেস্ক: বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের সহকারী মহাসচিব ও জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসার শাইখুল হাদিস মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, আজ মন্ত্রী পরিষদের ঘোষণার মধ্য দিয়ে কওমি মাদরাসা শিক্ষা সনদের সরকারি স্বীকৃতির তৎপরতা বাস্তবায়নের চূড়ান্ত পর্যায়ে উপনীত হওয়ার দোড়গোড়ায় পৌছেছে। এই আন্দোলনের পেছনে আমাদের মুরুব্বি এবং আকাবিরগণ মেহনত করেছেন, আল্লাহ তাদের মেহনতকে কবুল করেছেন।

সোমবার (১৩ আগস্ট) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে কওমী ফোরাম এর উদ্যোগে আয়োজিত ‘একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কওমী মাদরাসা ভাবনা’ শীর্ষক সেমিনার তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম ও ছাত্র জনতার কঠোর অবস্থানের কারণে নিজস্ব স্বকীয়তা বজায় রেখে, আমাদের মুরুব্বিরা যেভাবে চেয়েছিলেন, সেভাবেই কওমি সনদের সরকারি স্বীকৃতি পেতে চলেছি।

তিনি আরো বলেন, প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী দারুল উলুম দেওবন্দের মূলনীতির ওপরে ভিত্তি করেই আমাদের কওমি মাদরাসা শিক্ষা সনদের মান বাস্তবায়ন হচ্ছে। অল্প সময়ের মধ্যেই এ আইনটি সংসদেও পাশ হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এসময় তিনি বাংলাদেশের মেধাবী ছাত্রদের দারুল উলুম দেওবন্দে পড়ার সুযোগ প্রদান করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

মাওলানা মামুনুল হক এর সভাপতিত্বে ও মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী, প্রবন্ধ পাঠ করেন মুফতি এনায়েতুল্লাহ।

ইসলাম ও দেশ বিরোধি সকল ষড়যন্ত্রের মোকাবেলায় কওমী মাদরাসা অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করছে উল্লেখ করে কওমী ফোরাম এর নেতৃবৃন্দ বলেছেন, নৈতিক অবক্ষয়ের এই যুগে দেশের উন্নয়ন, সমৃদ্ধি ও নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে কওমী শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই।

আদর্শ রাষ্ট্র নির্মাণ, দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, সামাজিক নিরাপত্তা, নারীর সম্মান, জীবনের নিশ্চয়তা, শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য রক্ষার চ্যালেঞ্জ উত্তরণে কওমী ধারার শিক্ষা বিশাল ভূমিকা রাখছে। এ শিক্ষার সুফলকে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে পৌঁছে দিতে রাষ্ট্র এবং সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে এগিয়ে আসার আহবান জানান সেমিনারের বক্তাগণ।

অন্যন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আল্লামা আশরাফ আলী, মাওলানা মাহফুযুল হক, মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম, মাওলানা মুজিবুর রহমান পেশওয়ারী, মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী, মাওলানা হাসান জামিল, মাওলানা রুহুল আমিন সাদী, মুফতি মুর্তজা হাসান ফয়েজী, মুফতি মোস্তফা কামাল, মাওলানা গাজী ইয়াকুব, মুফতি ফখরুল ইসলাম, মাওলানা তোফায়েল গাজালি, মুফতী শামসুদ্দোহা আশরাফী, মাওলানা এহসানুল হক, মুফতি রেজওয়ান রফিকী, মাওলানা আব্দুল খালেক শরিয়তপুরী, মাওলানা আবুল হাসানাত জালালী, মাওলানা ফজলুর রহমান, মাওলানা সোহায়েল আহমদ, মাওলানা আশরাফ মাহদী প্রমুখ।

সুত্র: আওয়ার ইসলাম

 

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

প্যান্ডেলের বাইরে সাউন্ড ব্যবহার করা নাজায়েয!

মুহিউদ্দীন কাসেমী: কিছুদিন আগে কী এক কাজে যেন ঢাকায় গেলাম। এশার সময় ট্রেনে ফিরলাম। স্টেশনে ...