বৃহস্পতিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সকাল ১০:১৩
Home / কওমি অঙ্গন / কওমি জগতে নতুন দিগন্তের উন্মোচন

কওমি জগতে নতুন দিগন্তের উন্মোচন

কমাশিসা ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দেওয়ার ঘোষণা ও এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারির প্রায় সতেরো মাস পর এ সংক্রান্ত আইন মন্ত্রিসভায় উঠতে যাচ্ছে। ওই আইনের মাধ্যমে দেশের প্রচলিত কওমি শিক্ষা ব্যবস্থার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের (স্নাতকোত্তর ডিগ্রি) সমমর্যাদা দিতে যাচ্ছে সরকার। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি সাহিত্য- এ দুই বিষয়ে মাস্টার্সের মর্যাদা পাবে দাওরায়ে হাদিস। এ সংক্রান্ত আইনের খসড়া অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভার সোমবারের (১৩ আগস্ট) বৈঠকের আলোচ্যসূচিতেও রাখা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

২০১৭ সালের ১১ এপ্রিল কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্স সমমর্যাদা ঘোষণা করে সরকার। ওই দিন গণভবনে প্রায় তিন শতাধিক আলেমদের এক অনুষ্ঠানে কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকের (বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ) চেয়ারম্যান আল্লামা শাহ আহমদ শফীর উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঘোষণা দেন। ওই অনুষ্ঠানে অন্য পাঁচটি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও দেশের শীর্ষ আলেমরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে। এর আলোকে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) উচ্চপর্যায়ের আলেমদের সঙ্গে দফায় দফায় বসে এ সংক্রান্ত আইনের খসড়া চূড়ান্ত করে।

এর পরও কওমি মাদরাসার সমমান সংক্রান্ত আইন পাশ বিলম্ব হওয়ায় ২৮ জুলাই (২০১৮) রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন আল্লামা আহমদ শফী। তখন কওমি সনদের স্বীকৃতি দ্রুত সময়ে মন্ত্রিসভায় অনুমোদন এবং আইনি ভিত্তি প্রদান করে চূড়ান্ত ঘোষণার আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী।

ওই আইনে বলা হয়েছে, কওমি মাদরাসার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য বজায় রেখে এবং দারুল উলুম দেওবন্দের মূলনীতিগুলোকে ভিত্তি করে এই সমমান দেয়া হল।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, এ সমমান দেওয়ার লক্ষ্যে বেফাক সভাপতি (পদাধিকার বলে) আল্লামা শফীর নেতৃত্বে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে সরকারের কোনো প্রতিনিধি রাখা হয়নি।

বলা হয়েছে, এ কমিটি সনদবিষয়ক যাবতীয় কার্যক্রমের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী বিবেচিত হবে। এ কমিটির তত্ত্বাবধানে নিবন্ধিত মাদরাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিসের সনদ মাস্টার্সের সমমান বিবেচিত হবে। এ কমিটির অধীনে ও তত্ত্বাবধানে দাওরায়ে হাদিসের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। কমিটি সিলেবাস প্রণয়ন, পরীক্ষা পদ্ধতি, পরীক্ষার সময় নির্ধারণ, অভিন্ন প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়ন, ফলাফল এবং সনদ তৈরিসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এক বা একাধিক উপ-কমিটি গঠন করতে পারবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়গুলো অবহিত করবে কমিটি। এ কমিটি দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে থাকবে।

কওমি মাদরাসা শিক্ষা সনদের সমমান কিংবা স্বীকৃতির দাবি দীর্ঘ দিনের। বিভিন্ন সময় এর জন্য আন্দোলন হয়েছে। ২০১০ সালে সরকার শিক্ষানীতি ঘোষণার সময়ই কওমি শিক্ষাকে স্বীকৃতি দেওয়ার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়। ২০১৩ সালে কওমি সনদের স্বীকৃতি বাস্তবায়নে আল্লামা শফীর নেতৃত্বে কমিশন গঠন করে সরকার। ১৭ সদস্য বিশিষ্ট ওই কমিটিতে সদস্য সচিব ছিলেন গওহারডাঙ্গা মাদরাসার মহাপরিচালক মুফতি রুহুল আমীন।

কওমি মাদরাসা মূলত ভারতের উত্তর প্রদেশের দেওবন্দ মাদরাসার আলোকে প্রণীত শিক্ষা ব্যবস্থা। এখানে কোরআন-হাদিসের মূলধারার শিক্ষার ওপর বেশি জোর দেওয়া হয়। বাংলাদেশে প্রায় ২০ হাজার কওমি মাদরাসার প্রায় ৫০ লাখ শিক্ষার্থী রয়েছে।

দাওরায়ে হাদিস কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ স্তর। কওমি শিক্ষায় ৬টি স্তর রয়েছে। এগুলো হল- ইবতেদাইয়্যাহ (প্রাথমিক), মুতাওয়াসসিতাহ (নিম্নমাধ্যমিক), সানাবিয়্যাহ আম্মাহ (মাধ্যমিক), সানাবিয়্যাহ খাসসাহ (উচ্চ মাধ্যমিক), মারহালাতুল ফজিলত (স্নাতক), মারহালাতুত তাকমিল বা দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স সমমান)।

তবে দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দেওয়া হলেও অন্য পাঁচটি স্তরকে সমমানের স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। এটা নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা রয়েছে।

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

জাগতিক ও ইসলামী শিক্ষা

#জাগতিক_ও_ইসলামী_শিক্ষা মানুষের খুদি বা রূহকে উন্নতিসাধনের প্রচেষ্টার নামই হলো শিক্ষা, কথাটি আল্লামা ইকবালের। রবীন্দ্রনাথের মতে, ...