রবিবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ দুপুর ২:০৯
Home / অনুসন্ধান / হাকালুকিতে মারা গেছে ২৫ মেট্রিক টন মাছ

হাকালুকিতে মারা গেছে ২৫ মেট্রিক টন মাছ

ময়নুল হক পবন, কুলাউড়া (মৌলভীবাজার)

এশিয়ার বৃহত্তম হাকালুকি হাওরে ধান পচে বিষক্রিয়ায় মৌলভীবাজারের তিনটি উপজেলার কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখায় মারা গেছে ২৫ মেট্রিক টন বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। যার বাজার মূল্য প্রায় ২৫ লাখ টাকা। বর্তমানে মাছ মরা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। পানির গুণগত মান মাছের বসবাস উপযোগী স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে। হাওরে মাছের আবাসস্থল সম্পূর্ণরুপে নিরাপদ আছে। কুলাউড়া উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ এসব তথ্য জানিয়েছেন। মৌলভীবাজারে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আ.ক.ম শফিকুজ্জামান এক ব্রিফিংয়ে জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে মৎস্য অধিদপ্তর থেকে হাকালুকি হাওর সংশ্লিষ্ট তিনটি উপজেলা বড়লেখা, জুড়ী ও কুলাউড়ায় এক লাখ করে তিন লাখ টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে এবং ৫ মেট্রিকটন চুন ছিটানো হয়েছে। এ ছাড়া প্রচুর বৃষ্টিপাতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে পানির গুণগত মান স্বাভাবিক পর্যায়ে চলে এসেছে।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আরো জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে তিনটি উপজেলায় ৮টি বিলে নার্সারির মাধ্যমে ১৮ লাখ রুই জাতীয় মাছের পোনা উৎপাদন কার্যক্রম শুররুহয়েছে, যা আগামী জুনের মধ্যে অবমুক্ত করা হবে। এ ছাড়াও হাকালুকি হাওরের জন্য আরও পোনা অবমুক্তির চাহিদা প্রেরণ করা হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়ার সাথে সাথে তা অবমুক্ত করা হবে। ইতোমধ্যে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের যুগ্মসচিব সৈয়দ মেহেদি হাসানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল হাকালুকি হাওর পরিদর্শন করেছে। অন্যদিকে জেলা প্রশাসকের সাথে পরামর্শক্রমে পরিচয়পত্রধারী ৪ হাজার জেলেকে খাদ্য সাহায্যের ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়া চলছে। অকাল বন্যায় হাকালুকি হাওরের ধান পচে বিষক্রিয়ায় স্থানীয় জাতসহ প্রায় ২৫ মেট্রিকটন মাছ মারা গেছে। হাওরে প্রতিবছর মোট মাছের উৎপাদন ক্ষমতা প্রায় ১৮ হাজার মেট্রিকটন।

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

দেওবন্দ ও দেওবন্দিয়ত আমাদের কাছে মাজলুম!

মুফতী রেজাউল কারীম আবরার :: দেওবন্দ! আমাদের শিকড়। আকাবিরদের চোখের পানি আর কলজের খুনে সিক্ত ...