বৃহস্পতিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ সকাল ১১:৫৮
Home / কওমি অঙ্গন / কওমীর ছাত্রাবাস হোক ক্যারিয়ার গড়ার ঠিকানা

কওমীর ছাত্রাবাস হোক ক্যারিয়ার গড়ার ঠিকানা

লাবীব আব্দুল্লাহ

বাংলাদেশের অধিকাংশ কওমী মাদরাসা আবাসিক৷ কোনোটা পূর্ণ আবাসিক৷ হিফজখানাগুলোও পূর্ণ আবাসিক৷

আগে ওয়াকফের জায়গায় মাদরাসা ভবন নির্মাণ করা হতো৷ তালেবে ইলমরা ভবনে বসবাস করেন৷ বহুতল ভবন৷ সাধারণত দরস ও আবাসন একই কামরায়৷ এই আবাসনের জায়গায় দরস একটি সনাতন নিয়ম৷ অস্বাস্থ্যকর৷ আধুনিক কোনো বিদ্যালয়ে এই পদ্ধতি অকল্পনীয়৷ নানা কারনে আবাসিক ব্যবস্থা পৃথক করা প্রয়োজন৷ জায়গা সংকুলান না হলে প্রয়োজনে সীমিত জামাত বা শ্রেণি খোললেই হয়৷ ইদানীং বাসা ভাড়া করে মাদরাসা করা হয়৷ প্রাইভেট মাদরাসা৷ ইসলামী চিন্তাধারায় মাদরাসা প্রাইভেট হবে তা আগে কল্পনাও করা যেতো না৷ কমিটির চাপ বা অবৈধ দখলদারিত্ব থেকে মুক্তির চিন্তা থেকে জন্ম প্রাইভেট মাদরাসা৷ মহিলা মাদরাসাগুলো অধিকাংশই প্রাইভেট৷ আশির দশকের আগে তেমন ছিলানা মহিলা মাদরাসা৷ এই শতকে গ্রামে গ্রামে গড়ে ওঠেছে মহিলা মাদরাসা৷ মহিলা মাদরাসা হাজার হাজার হলেও মানসম্পন্ন কোনো সিলেবাস নেই৷ পুরুষের জন্য যা মহিলারা তাই পড়ছেন৷ সহশিক্ষা না হলে প্রায় সবগুলো মহিলা মাদরাসার মুহতামিম পুরুষ৷ এবং হাদীসের দরসগুলো পুরুষগনই দেন৷ মহিলা মাদরাসার পরীক্ষার পদ্ধতিও পুরুষকর্তক পরিচালিত৷ মহিলা নেগরান থাকলেই প্রধান নেগরান পুরষ৷ নেগরানে আলার অধীনে মহিলারা পরীক্ষা নেন৷ যাক মহিলা মাদরাসা নিয়ে কথা বলছি না আজ৷ তবে দাওরার দরসগুলো দিনে রাতে আসরের পর এবং ইশার পরও হওয়া অযৌক্তিক৷ বিশেষ করে মহিলা মাদরাসায় রাতে দরস তাও আবার পুরষ কর্তক তা ঠিক নয়৷ ঠিক না হলেও চলবে৷ এইসব কথা বললে বা লিখলে আবার খারিজ করে দেওয়া হবে সব চিন্তা৷ চিন্তক হবেন মহিলামাদরাসাবিরোধী৷ মহিলা মাদরাসাগুলোও অধিকাংশ আবাসিক৷ কী যে বিড়ম্বনা মহিলা মাদরাসায় তা কিছুটা আমি জানি কারন মহিলা মাদরাসায় জড়িত ছিলাম চৌদ্দ বছর৷ মাদরাসাটি আবার ভাড়াবাসায় শুরু শেষে নিজস্ব জায়গায়৷ আট শতাধিত তালেবাত আমার স্মৃতির সেই মাদরাসায়৷ অধিকাংশ মহিলা মাদরাসা ভাড়া বাসায়৷ পরিসর জেলখানার কনডেম সেলের মতো৷ বোডিং এর খাদ্যমান নিয়ে কথা না বলা ভালো৷ পরে আবার টেক্স ধরতে পারে ওজিরে মালিয়াত৷ এইযে তালেবে ইলমরা পুরষ বা মহিলা মাদরাসায় আবাসানের সুযোগ পায় আজকের কথা আবাসিক তালাবা ও তালেবাত নিয়ে৷ তালেবান নয় আবার৷ তালেবানি মগজ অচল বিকল ও ভয়ংকর এই দেশে৷

মুফতি হান্নানের ফাঁসির রায় থেকে তালেবে ইলমরা শিক্ষা নিতে পারে৷ “আমরা হবো তালেবান” একটি বাজে ধারনা৷ আবাসিক তালেবে ইলমরা তালেবানে উলুমে নবুওয়ত৷ এই আবাসিকে আমেরিকা বা রাশিয়ার ভাড়াটে হবার চিন্তা যারা করে আমার কাছে মনে হয় যুগের সেরা হিমারুন৷ হিমারুন মানে বললাম না৷ হিমারুন বললাম বিগালুনও বলা যেতো৷ ইলমে দীন তলব করার জায়গায় অন্যকিছু চিন্তা করা হিমারুন বা বিগালুনের চিন্তা৷ আধুনিক বিশ্ব সম্পর্কে কোনো ধারনা নেই কথায় কথায় তালেবান বা আইএস জাতীয় রহস্যময় সংগঠন নিয়ে কথা বলা বা সাপোর্ট করা একটি বাজে চিন্তা৷ আগামীতে কওমী মাদরাসার বড় সংকট হতে পারে এইসব নাবালক চিন্তা৷ আমার সাথে দ্বিমত, তৃতীয় মত থাকতে পারে কিন্তু আমি একটি জামিয়ায় প্রায় এক দশক প্রভোস্ট জাতীয় দায়িত্ব যা নাজেমে দারুল ইকামার জিম্মাদারির তাজরেবা থেকে বলতে পারি, কওমী আবাসিকে আবস্থানরত তালেবে ইলমদের আলোচনার বিষয়গুলো বাজে৷ অর্থহীন৷ বাজে তক্কাতক্কি৷ তবে বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের শততম টেস্ট জয়ের গল্পও কিন্তু মুখ্য আলোচনা কওমীতে৷ হাত্তাকে দরসেও সাকিব আল হাসানের গল্প চলে৷ মুশফিকুর রহীমের কথাও আলোচিত৷ তবে তালেবানি জাতীয় আলোচনা থেকে ক্রেকেট খেলাটা খারাপ না৷ তবে কিতাবুল জিহাদের আলোচনা হবে তা তো হতেই হবে৷ বাংলাদেশ থেকে জজবায় বা জুশে যারা আইএসের ফাঁদে পা দিয়েছে তারা এখন আত্মঘাতী হচ্ছে৷ বিপাকে৷কথিত আলবাগদাদীরা এখন চিঁপায় আছে৷

যাক কথা এলোমোলো করছি না এইসব বলে৷ তবুও যা লিখতে চাইলাম তা হচ্ছে না৷ বলতে চেয়েছিলাম কওমী মাদরাসার আবাসিক ব্যবস্থা তালেবে ইলমদের জন্য নিয়ামত৷

ঢাকা শহরে এক কামরার ভাড়া কত? হাজার হাজার তালেবে ইলম ছাত্রাবাসে সিট পাচ্ছে৷ কিন্তু সিট পেয়ে যদি তালেবানি বা সাকিব মুশফিক নিয়ে হুদাহুদি গল্প করে সময় কাটায় তাহলে এই তালেবে ইলমরা ফারেগ হয়ে কী করবে? ভাড়া বাসায় মহিলা মাদরাসা করতে পারবে বা প্রাইভেট মাদরাসা৷ কিন্তু দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মাহর জন্য একুশ শতকে যা প্রয়োজন তা কি করতে পারবে?

বাড়তি যোগ্যতা ছাড়া কর্মজীবনে সাত আট হাজার টাকা ওজিফা পেয়ে কি সুন্দর জীবন যাপন করতে পারবে? আমি বরকত থিউরিতে বিশ্বাসী হয়েও বলতে পারি তালেবে ইলমরা যদি আবাসিক সময়কে ভালো কাজে ব্যয় না করে তাহলে আগামী দিনে তাদের বাস্তব জীবন আরও অন্ধকারময় হবে৷ মেধাবীরা বিষয়টা বোঝবেন আশা করতে পারি৷

প্রস্তাবনা:

এক. কওমী মাদরাসার আবাসিক তালেবে ইলমদের জন্য কর্মমুখী নানা কোর্সের আয়োজন করা যেতে পারে৷ ক্যারিয়ার গড়তে সহায়ক এমন কোর্স করা যেতে পারে যেনো কর্মজীবনে তা প্রয়োগ করে হালাল উপার্জন করতে পারে৷

দুই. আবাসিক তালেবে ইলমরা যেনো কোনো নষ্ট সংগঠনে না যেতে পারে কর্তপক্ষকে এ ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে৷
নানা নষ্ট চিন্তার লোক ঘাপটি মেরে মাদরাসায় ভর্তি হতে পারে বা ছাত্রাবাসে থাকতে পারে তাদেরকে মাদরাসায় থাকতে দেওয়া যাবে না৷

তিন. আবাসিক তালেবে ইলমদের ভালো আলেম হবার জন্য শুধু আবাসিকে থাকার জন্য তাজরেবাকার উস্তায নিয়োগ করা যেতে পারে৷ যারা দরস দেন তাদেরকে আবাসিক দায়িত্ব না দিয়ে সেইসকল মুরুব্বী আলেমদেরকে খন্ডকালীন নাজেমে দাকুল ইকামা নিয়োগ করা যেতে পারে৷ তকরার মুতালায় সেই দায়িত্বশীলগন সহায়তা করবেন৷

চার. আবাসিক তালেবে ইলমদেরকে আবাসিক থাকার কিছু শর্তারোপ করা যেতে পারে৷ সে শুধু থাকবে কিন্তু পড়ালেখায় ডাব্বা মারবে তা হতে পারে না৷

পাঁচ. আবাসিক শিক্ষকদের পৃথক বেতন স্কেল থাকতে পারে৷ সম্মানজনক৷

ছয়. মহিলা মাদরাসায় আবাসিক তালেবাত যেনো বোর্ডিং -এ রান্নার সুযোগ লাভ করে তার ব্যবস্থা করা৷ কারন দাওরা পর্যন্ত রান্না না করলে সে ভালো রাধঁনী হতে পারবে না৷ বা রান্না পারলেও অলস আলেমা হবেন পারিবারিক জীবনে৷

About Abul Kalam Azad

mm

এটাও পড়তে পারেন

জাগতিক ও ইসলামী শিক্ষা

#জাগতিক_ও_ইসলামী_শিক্ষা মানুষের খুদি বা রূহকে উন্নতিসাধনের প্রচেষ্টার নামই হলো শিক্ষা, কথাটি আল্লামা ইকবালের। রবীন্দ্রনাথের মতে, ...