শনিবার, ২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং
কমাশিসা পরিবারবিজ্ঞাপন কর্নারযোগাযোগ । সময়ঃ রাত ২:০৯
Home / কওমি অঙ্গন / একটি রুহানী মাহফিল ও আদর্শ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কিছুক্ষণ

একটি রুহানী মাহফিল ও আদর্শ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কিছুক্ষণ

জুলফিকার মাহমুদী::

গতকাল (8/2/2017 ঈসাঃ) গিয়েছিলাম সিলেট বালাগঞ্জ উপজেলার বোয়াজজুড় ইউপির শাইখ, বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ, বহুগ্রন্থের লিখক, শিক্ষানুরাগী, মাওলানা খতিব তাজুল ইসলাম সাহেবের ত্বত্তাবধানে পরিচালিত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া নুরানিয়া ইসলামিয়া বোয়ালজোড়ে ৷ আলহামদুলিল্লাহ ছুম্মা আলহামদুলিল্লাহ খুব ভাল লেগেছে অত্র দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে ৷ চিরাচরিত অভ্যাস অনুযায়ী তিক্ষ্ণ চোখে দেখতে লাগলাম প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম ৷ অনেক কিছু দেখলাম ৷ বর্তমান সময়ে প্রতিষ্ঠান পরিচালনার রূপরেখা তৈরী করে লটকিয়ে রেখেছেন পরিচালকের একেবারে মাথার উপরে। যেন সময় সময় উপদেশ দিচ্ছে কখন কি করণীয় শিক্ষক শিক্ষার্থীদের, অভিভাবক ও কর্তৃপক্ষের ৷ বিশেষ করে শিক্ষক হাজিরা খাতার নিয়ম ও তার সুন্দর কাঠামো। ছাত্র ছাত্রীদের মানউন্নয়ন রিপোর্টবুক। সাবলিল প্রশান্তিমূলক ক্লাস রুটিন। বিদ্যালয়ের সময় সূচি। ক্লাস রুটিনের শুরুতেই কুরআনি ক্লাস। ক্লাস রুটিনের পাশেই লিখিত শিক্ষক নির্দেশাবলী। ছোট ছোট ছাত্রদের জন্য তৈরী শরীর চর্চার আসবাব পত্র। ছাত্রীদের জন্য হাতের কাজ শিখার সেলাই মেশিন।  ছাত্রদের জন্য তিনটি কম্পিউটার। মনোমুগ্ধকর লাইব্রেরী। অথচ মাদরাসাটি পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ৷ ছাত্র ছাত্রী সংখ্যা পরিমাণ মত ৷ যে পরিমাণ মেহনত করতে সক্ষম উস্তাদ সাহেবানরা সে পরিমাণ ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করেন। জানালেন সহকারী পরিচালক মাওলানা লুৎফর রহমান সাহেব ৷ ভর্তি ফরমে আছে ডিজিটালের ছুয়া।  প্রতিটি শিক্ষার্থীর আছে গলায় ঝুলানো উন্নতমানের পরিচয় পত্র ৷ ছাত্রছাত্রীদের এককালার লেবাস। ছোটো ছোট ছাত্রীরা হিজাবে আচ্ছাদিত ৷ ক্লাস রুমে বসার আলাদা আলাদা ছোটছোট চেয়ার। রাস্তার একেবারে পাশে থাকার পরও নিরাপদে পাঠদানের ব্যবস্থা। শিক্ষকদের পরস্পর আন্তরিকতা। অফিসিয়াল ব্যবস্থাপনা চমৎকার (তবে অফিসের চেয়ার আরো উন্নত হওয়া চাই), খুবই সন্তুষ্ট জনক ৷ সবগুলো তন্ন তন্ন করে নিজের মত করে দেখেছি ৷ খুব ভাল লেগেছে ৷
আজ ছিল জামিয়ার বার্ষিক জলসা ৷ জলসায় বিশেষ আকর্ষণ ছিল শিশু শিক্ষা প্রদর্শনী ৷ একই রঙ্গের লেবাসে ছলছিলো প্রদর্শনী ৷ মুগ্ধতায় ভরপুর মাওলানা #মীম হুসাইনের উপস্থাপনা ৷ উপস্থাপনায় ছিলোনা কোন চিল্লানীর সুর ৷ স্বাভাবিক মিষ্টিসুরের উপস্থাপনা মনে হচ্ছে আমি জীবনের প্রথম দেখলাম ৷ এজন্য মাওলানা মীম হুসাইনের প্রতি আমার আন্তরিক দুআ ও শুভেচ্ছা ৷
আরো একটি জিনিস না বললেই নয় বাজারী ব্যবসায়িক বক্তাদের চেয়ে আল্লাহওয়ালা বুযুর্গদের দাওয়াত ও তাদের আগমন দেখে খুবই ভাল লেগেছে ৷
প্রথমেই গিয়েদেখি বয়ান করছেন আমার উস্তাদ, শাইখুল হাদীস আল্লামা আব্দুশ শহিদ গলমুকাপনী হুজুর দাঃবাঃ কে ৷ বয়ান করছেন আমলী বয়ান ৷ নেই কোন কতিত টানটুন আর চিল্লানী পাল্লানী ৷ সময়টি ছিল আসর পুর্ব ৷ বয়ান শেষে দুআ করলেন মন খোলে ৷
অতপর আসরের আযান হলো, হুজুরের সাথে সাক্ষাৎ হতেই সালাম করতে দেরী হুজুর মুসাহাফার জন্য হাত বাড়িয়ে দিলেন। বুকে জড়িয়ে নিয়ে মুআনাকা করলেন ৷ চোখ দুটিতে আনন্দাশ্রু ছিল ৷ সত্যেই মনে অনেক আনন্দ পেয়েছি ৷ আসর নামায শেষে শুরুহলো প্রদর্শনী ৷ চললো মাগরীবের পুর্ব পর্যন্ত ৷ যা ছিল – জরুরিয়াতে দ্বীনের মাসআলা মাসাইলের প্রদর্শনী ৷ মাগরীবের পর বয়ান করলেন হাকিমুল ইসলাম আল্লামা আখতার হুসাইন সাহেব রহঃএর সুযোগ্য খলিফা, ওলিয়ে কামিল, আল্লামা আছগর হুসাইন দাঃবাঃ ৷ বয়ান করলেন এশা পর্যন্ত ৷ উপস্থিত হলেন কওমির সুর্য সন্তান, সমাজ সেবক, বিশিষ্ট আইনবিদ শাইখ সালেহ হামিদী দাঃবাঃ ৷ হাস্যোজ্জল চেহারার এ হযরতজী কতইনা খিদমতে খালকের সাথে জড়িত ৷ আল্লাহ উনার খেদমতে খালক্বকে কবুল করুন (আমিন)। এমন সময় উপস্থিত হলেন সিলেট জেলার ঐতিহ্যবাহি দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মহাপরিচালকদ্বয়।
হযরত মাওলানা শায়েখ মুহিউল ইসলাম বুরহান সাহেব, মুহতামিম রেঙ্গা, ও জামিয়া মাদানিয়া কাজীর বাজার মাদরাসার প্রেন্সিপাল, বাংলার সিংহ পুরুষ খ্যাত আল্লামা হাবিবুর রহমান হাফিজাহুল্লাহ ৷
মনে লাগছিল যেন প্রতিজন বুযুর্গই রহমতের পাহাড় নিয়ে জামিয়া নুরানিয়াকে নুরান্নিত করছেন ৷ প্রেন্সিপাল হুজুরের কান্নাজড়িত কন্ঠের দুআ ও শাইখুল হাদিস আল্লামা আছগর হুসাইন হুজুরের সহবত আমাকে খুবই ভাগ্যবান করেছে ৷ আল্লাহ আরো উন্নতি দান করুন এই প্রতিষ্ঠান কে ৷ নিরলস খিদমতকে নাজাতের উসিলা হিসাবে কবুল করুন। তার সাথে জড়িত সকল শিক্ষক শিক্ষার্থী, কর্তৃপক্ষ অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট সকল কে, আমিন ৷

লেখক: মুহাদ্দীস, কওমি গবেষক চিন্তক।

About Islam Tajul

mm

এটাও পড়তে পারেন

স্বতন্ত্র কওমি বিশ্ববিদ্যালয় নয় হাইআতুল উলইয়াকেই ইউজিসির মান দেয়া চাই : মুফতি মুহাম্মদ আলী

কওমি অঙ্গনে বর্তমানে স্বীকৃতি একটি প্রধান ইস্যু৷ স্বীকৃতি নিয়ে কম জল ঘোলা করা হয়নি। চলমান ...